গুড়ো দুধ কি স্বাস্থ্যকর?

অনেকেই তরল দুধের পরিবর্তে গুঁড়া দুধ পান করতে পছন্দ করেন। কারণ তারা ভাবেন তরল দুধের চাইতে গুঁড়া দুধ বেশী পুষ্টিকর। যদিও তরল দুধের মতো সকল পুষ্টি উপাদান গুঁড়া দুধেও বিদ্যমান, তবে গুঁড়া দুধের মাঝে কিছু সমস্যাও রয়েছে। গুঁড়া দুধে রয়েছে উচ্চ কোলেস্টেরল এবং চিনি। একই সাথে সঠিকভাবে সংরক্ষণের অভাবে এতে সংক্রমিত হতে পারে ব্যাকটেরিয়া। এছাড়াও জেনে নিন গুঁড়া দুধের ব্যাপারে আরও বিস্তারিত কিছু তথ্য।

১। গুঁড়ো দুধে থাকে অক্সিডাইজড কোলেস্টেরলঃ
জ্বি এটা সত্যি। গুঁড়ো দুধে থাকে অক্সিডাইজড কোলেস্টেরল। অক্সিডাইজড কোলেস্টেরল হল মোমের মতো পদার্থ যা নালীর দেয়ালে আটকে থাকে। যার ফলে রক্তনালী গুলো ক্ষতিগ্রস্থ হয়। প্রাকৃতিক তরল দুধের মতো উপাদান গুঁড়ো দুধে তৈরি করার জন্য ব্যবহৃত হয় কৃত্রিম উপাদান। যা থেকে তৈরি হতে পারে হৃদযন্ত্রের নানাবিধ রোগ।

২। সাশ্রয়ীঃ
গুঁড়ো দুধ ব্যবহারের অন্যতম লোভনীয় দিক হচ্ছে, এটি খুবই সাশ্রয়ী। তরল প্রাকৃতিক দুধ কিংবা প্যাকেটজাত দুধের তুলনায় গুঁড়ো দুধ কেনা যায় অনেক কম দামে। গবেষকদের মতে, এত কম দামে গুঁড়ো দুধ পাওয়া যাওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে, এটি তৈরিতে নিকৃষ্টমানে পণ্য ব্যবহার করা।

৩। ভালোভাবে দ্রবীভূত হয় নাঃ
যেহেতু অনেক গুঁড়ো দুধ তৈরিতে খুব একটা ভালো ও উন্নত মানের উপাদান ব্যবহৃত হয় না, সেহেতু গুঁড়ো দুধ খুব ভালোভাবে মিশে যায় না। পানি বা অন্য কিছুর সাথে মেশানোর চেষ্টা করা হলেও দলা পাকিয়ে কিছু অংশ থেকে যায়। এমন দুধ খাওয়ার পর পেটের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

এরপরেও কথা থেকেই যায়। নানান প্রয়োজনে গুঁড়ো দুধের ব্যবহার করতেই হয়। তাই লক্ষ্য রাখুন, দুধটি যেন ভালো ব্র্যান্ড ও ভালো মানের হয়।