প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। শরীরের লম্বার সঙ্গে ওজনের একটা অনুপাত থাকে,এই অনুপাতকে বডি মাস ইনডেক্স বলে BMI।যেমন ধরুন আপনার উচ্চতা আর আপনার ওজনে যদি আপনার BMI 18-24.9 হয় তালে এটা নরমাল। 18 এর কম হলে, আপনাকে ওজন বাড়াতে হবে। আপনার BMI 19.3  যা স্বাভাবিক রেঞ্জ এ আছে।তারপরেও আপনি ওজন বাড়াতে চাইলে ওজন বাড়ানোর জন্য আপনি কতগুলো জিনিস করতে পারেন : 1)পুষ্টিকর খাবারদাবার - ওজন বাড়াতে হলে খেতে হবে। যা খুশি তা-ই খেলে উপকারের চেয়ে অপকারই বেশি। ভারসাম্যপূর্ণ পুষ্টিকর খাবার। প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট ও ফ্যাটের যথাযথ সমন্বয় থাকতে হবে খাবারে। মাংসপেশি গঠন আর ওজন বাড়ানোর জন্য পর্যাপ্ত প্রোটিনের চাহিদা মেটানো গুরুত্বপূর্ণ। নানা ধরনের বাদাম, দুধ ও দুধজাত খাবার শরীরকে প্রয়োজনীয় শক্তি জোগাবে। 2) পানীয়ের পরিমাণ - ওজন বাড়াতে হলে আগে ক্ষুধা বাড়াতে হবে। ক্ষুধা বাড়ানোর জন্য হজমে সহায়ক পানীয় পান করুন। সারা দিনে ৬ থেকে ৮ গ্লাস পানি খান। তবে, খেতে বসার ঠিক আগে পানি খাবেন না বা খাওয়ার মাঝখানেও পানি খাবেন না। এতে ক্ষুধা নষ্ট হয়ে যায়। 3) হাবিজাবি কম খান- সকাল-দুপর-রাতের ভারী খাবারের মাঝে বারবার এটা-সেটা খাবেন না। কেউ কেউ বলেন দিনে তিন থেকে পাঁচ বেলা ভারী খাবার খাওয়াটাই ভালো। বেছে বেছে পুষ্টিকর খাবারে পেট ভরাতে হবে। হালকা-পাতলা শরীরে বারবার হাবিজাবি ভাজাপোড়া বা ফাস্ট ফুড জাতীয় খাবার খেয়ে ওজন বাড়ানোর চেষ্টা করলে লাভের চেয়ে ক্ষতিই বেশি হবে। 4)শর্করায় সতর্কতা আপনার হালকা-পাতলা শরীর দেখে কাছের মানুষেরা হয়তো কেক-পেস্ট্রিসহ নানা অতিরিক্ত শর্করা জাতীয় খাবার খেতে উৎসাহিত করবেন। কিন্তু অতিরিক্ত চিনিযুক্ত খাবারের বিষয়ে সাবধান। ভিসেরাল ফ্যাট বা স্কিনি ফ্যাটের খপ্পরে পড়ে যেতে পারেন আপনি। এটা এমন চর্বিযুক্ত উপাদান যা হঠাৎ মেদ বাড়িয়ে না দিলেও দেহের ভেতরে নানা গুরুত্বপূর্ণ প্রত্যঙ্গে বাসা বাঁধতে পারে। তাই শর্করা খেতে হবে বেছে বেছে। 5)শরীরচর্চা শুরু করুন সুস্বাস্থ্যের জন্য শরীরচর্চার কোনো বিকল্প নেই। আপনি যত হালকা-পাতলাই হন না কেন ব্যায়ামে আপনিও দারুণ উপকৃত হবেন। রাতে ঠিকঠাক ঘুমিয়ে পড়া আর সকাল সকাল ঘুম থেকে ওঠার মতো অভ্যাসের কোনো বিকল্প নেই। তেমনি শরীরচর্চাটাও জরুরি। নিয়মিত ব্যায়াম করলে আপনার ক্ষুধা বাড়বে।তবে আপনার সিজার হয়েছে তাই আপনি এখন কোন শক্ত ব্যায়াম করবেন  না,কিছু হালকা ব্যায়াম করতে পারেন, শক্ত ব্যায়াম করার আগে অবশ্যই ডাক্তার এর পরামর্শ নিবেন।যোগ ব্যায়ামের অনেক আসন চর্চা করেও আপনি উপকৃত হতে পারেন। এছাড়া ওজন বাড়ানোর জন্য খাওয়া দাওয়ার বিশেষজ্ঞর পরামর্শ নিতে পারেন এবং তার কাছ থেকে আপনি খাদ্য তালিকা নিতে পারেন I ওজন ধীরে ধীরে বাড়ানো উচিত. এরপরও যদি ওজন না বাড়ে অথবা ওজন কমে যায় তাহলে ডাক্তার দেখানো উচিত I আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে মায়া আপাকে জানাবেন , রয়েছে পাশে সবসময় মায়া আপা।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও