প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। আপনি বলেছেন যে, কেউ যদি আপনাকে কোন খারাপ কথা বলে অথবা আপনার কথা না মানে তাহলে আপনার মাথা গরম হয়ে যায় অর্থাৎ আপনার অনেক রাগ হয়, তাই কি?  আপনার বিষয়টি বোঝার চেষ্টা করছি। আপনার এই আত্মসচেতনার জন্য সাধুবাদ। আপনাকে কি কয়েকটি প্রশ্ন জিঙ্গাসা করতে পারি? আপনার বয়স কত? কবে থেকে এমনটি হচ্ছে? এমন কিছু ঘটেছিল কি যার পর থেকে এই বিষয়টি বেড়ে গিয়েছে? মাথা গরম অর্থাৎ রাগ হলে আপনি কি করেন?গ্রাহক, আপনি ভেবে দেখতে পারেন  অন্যের নেতিবাচক কথায় আমাদের মন খারাপ হতে পারে এটি সত্যি কিন্তু সেই কথায় মনযোগ দিলে আমাদের কি লাভ হবে? যদি কেউ আমাদের কোন কাজ নিয়ে গঠনমূলক কোন সমালোচনা করে তখন হয়ত তা থেকে আমরা কিছু শিখতে পারি বা নিজেদের শুধরে নিতে পারি। কিন্তু নেতিবাক কথা বার্তাাগুলি নিয়ে বেশি দুশ্চিন্তা করলে উল্টো আমাদের নেতিবাচকতার ফাঁদে পড়তে হয়, তাই না?   আপনি logically ভেবে দেখতে পারেন যে কারো কটুক্তি বা খারাপ কথার মধ্যে যৌক্তিক কিছু আছে কি না। মনের মধ্যেই সেটিকে পাল্টা প্রশ্ন করে দেখুন। যদি যৌক্তিক কোন কিছু না থাকে তাহলে তাকে নির্দ্বিধায় এড়িয়ে যেতে পারেন। আপনার সক্ষমতা এবং সৃজনশীলতাকে কাজে লাগান। নিজের উপর আস্থা রাখুন। যে কটুক্তি করেছেন তাকে সম্ভব হলে এড়িয়ে চলতে পারেন কিছুদিন। কিংবা দেখা হলে উল্টো আপনি তার সাথে ভালো আচরণ করুন। যাতে সে তার ভুল বুঝতে পারে।আপনি যদি অন্যদেরকে ভালো ভাবে treat করেন তাহলে তারাও প্রতি অনুরক্ত থাকবে এবং নেতিবাচক কথা বার্তা avoid করবে, তাই না?অন্যের খারাপ কথায় রেগে গিয়ে সাথে সাথে জবাব না দিয়ে cool এবং calm থাকার চেষ্টা করাটাই ভালো । আপনি তখন নিজের আবেগকে control এ রাখতে breathing exercise করতে পারেন।যেমন- আরামদায়ক positionএ প্রথমে কয়েক সেকেণ্ড ধরে বুক ভরে মুখ অল্প একটু হা করে নিঃশ্বাস নিয়ে তারপর পাঁচ ছয় সেকেণ্ড শ্বাস ধরে রেখে ধীরে ধীরে প্রশ্বাস ছেড়ে দেয়া, এভাবে কয়েকবার করা যেতে পারে। এতে মন এবং nervous system কিছুটা প্রশমিত হয়। এর সাথে মেডিটেশন practiceও করা যেতে পারে।অথবা কারো নেতিবাচক মন্তব্যের বিপরীতে আপনি কিছুটা humar ব্যবহার করে পরিস্থিতিকে শান্ত এবং আপনার অনুকূলে নিয়ে আসতে পারেন। যেমন কোন কথার বিপরীতে আপনি সুন্দর করে হেসে তাকে বলতে পারেন `thanks, আপনি যে আমার প্রতি এত caring আগে তা বুঝতেই পারি নাই` বা এরকম ইতিবাচক ভাবে এড়িয়ে যেতে পারেন। আপনার কথা না শুনলে বলতে ঠিক কি বোঝাচ্ছেন তা কি আরও বিস্তারিতভাবে বলা যায়? যে কেউই অন্যের ক্ষতি না করে নিজের মত চলতে পারে, তাই না? আপনিও নিশ্চই অন্যের সব কথা শুনে আপনার কাজ কর্ম বা আপনার life lead করেন না, তাই নয় কি?গ্রাহক, রাগ হচ্ছে আমাদের একটি স্বাভাবিক এবং নেতিবাচক আবেগ। আমরা যদি রাগকে ঠিক মত নিয়ন্ত্রণ করতে না পারি বা অল্পতে মাথা গরম করে ফেলি তাহলে তা আমাদের ব্যক্তিজীবন, সামাজিক ও পেশাগত জীবনে এমনকি আমাদের স্বাস্থ্যের ওপরও নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। রাগ হলে তাৎক্ষণিক ভাবে আমরা কিছু কাজ করতে পারি, যেমন যে জায়গাটিতে রেগে যাওয়ার মতো কিছু ঘটেছে সেখান থেকে সরে যাওয়া। যার ওপরে রাগ হয়েছে - তার কাছ থেকে সরে যাওয়া। তার সাথে তখনই নয়, বরং খানিক পরে কথা বলা। হাতের কাছে যদি বরফ বা ঠাণ্ডা কিছু থাকে তাহলে তা হাত দিয়ে ধরে থাকা। breathing relaxationও আমাদের রাগ কমাতে সাহায্য করে।রাগ কমে যাওয়ার পর ঠান্ডা মাথায় চিন্তা করে দেখেন আপনি যে সব বিষয়ে রাগ করে অন্যকে দোষারোপ করেন সেসব বিষয় থেকে বা রাগারাগি করে আপনার কোনো লাভ হয় কি না। যদি কোনো লাভ না হয়, তবে পরবর্তী সময়ে রাগ না করার জন্য এখন থেকে নিজেকে তৈরি করার প্রস্তুতি নিন। মনে রাখবেন, রাগ করে কোনো লাভ না হলেও ক্ষতি কিন্তু হচ্ছে আপনারই। কারণ আপনি উত্তেজিত হচ্ছেন। আশা করি কিছুটা হলেও আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আপনার আরও কোন প্রশ্ন থাকলে সেটিও আমাদের করতে পারেন। মায়া আপা আপনার পাশে আছে সবসময়।    

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও