গ্রাহক, স্বাভাবিক প্রস্রাবে এমন কিছু উপাদান রয়েছে, যা থেকে পাথর হতে পারে, যেমন: ক্যালসিয়াম, অক্সালেট, ইউরিক অ্যাসিড ক্রিস্টাল ইত্যাদি। আমাদের শরীর বিপাক ক্রিয়া ও বর্জন পদ্ধতির মাধ্যমে এসব উপাদান প্রস্রাবের সঙ্গে বের করে দেয়। কোনো কারণে এসব উপাদান বেশি তৈরি হতে থাকলে বা প্রস্রাবে এর পরিমাণ বেড়ে গেলে এগুলো ঘনীভূত হয়ে আকার ধারণ করে পাথরে পরিণত হয়। লক্ষ্মণ: গ্রাহক, কিডনিতে পাথর থাকলেও অনেক সময় রোগীর কোনো উপসর্গ থাকে না। অকস্মাৎ আটকে গেলে বা কোনো জটিলতা দেখা দিলে বা রুটিন পরীক্ষায় এটি ধরা পড়ে। সাধারণত বক্ষপিঞ্জরের ঠিক নিচে, পেটের পেছন দিকে ও পাশে ব্যথা হতে পারে। ব্যথা এখান থেকে তলপেটে, কুঁচকির কাছে ছড়িয়ে যায়। প্রস্রাবে ব্যথা বা জ্বালাপোড়া হতে পারে। প্রস্রাবের সঙ্গে রক্তপাতও এর লক্ষণ। জ্বর, বমি বমি ভাব, কাঁপুনি ইত্যাদি সাধারণত সংক্রমণজনিত জটিলতা হলে হয়। চিকিৎসা: গ্রাহক, কিডনিতে পাথর হলে সেটি যন্ত্রের সাহায্যে গুঁড়ো করা বা অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে বের করা হয়। খুব ছোট পাথর অনেক সময় এমনিতে বেরিয়ে যায়।

পরিচয় গোপন রেখে ফ্রিতে শারীরিক, মানসিক এবং লাইফস্টাইল বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করতে পারেন Maya অ্যাপ থেকে। অ্যাপের ডাউনলোড লিঙ্কঃ http://bit.ly/38Mq0qn


প্রশ্ন করুন আপনিও