গর্ভকালীন সময় আপনার শরীরের বিশেষ যত্ন নেয়া প্রয়োজন। প্রতিটি পর্যায়ে আপনার শরীরে অনেক পরিবর্তন দেখা দিবে।প্রথমে লক্ষ্য রাখবেন আপনি প্রতিদিন স্বাস্থ্যকর খাবার খাচ্ছেন কিনা। প্রেগন্যান্সির সময় আপনার মনে হবে খুব তাড়াতাড়ি আপনার পেট ভরে যাচ্ছে। সেক্ষেত্রে অল্প অল্প খাবার ঘনঘন খাবেন। অনেক মহিলাই বমির কারণে বা বমি বমি ভাবের জন্য একদমই খাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেন না। এ সময় যে সব খাবার আপনি খেতে পারেন সেগুলো বেশী করে খাবেন এবং প্রচুর পরিমানে পানি খাবেন।  প্রেগন্যান্সির সময় নিজেকে সচল রাখতে চেষ্টা করবেন। অনেকেই হয়তো আপনাকে পরামর্শ দেবে শুয়ে থাকতে এবং বেড রেস্টে থাকতে, কিন্তু আপনার যদি সুস্থ প্রেগন্যান্সির অভিজ্ঞতা থাকে তাহলে অবশ্যই এ সময় যে ব্যায়ামগুলো করা সম্ভব সেগুলো করে নিজেকে সুস্হ রাখবেন। গ্যাস কমানো এবং Constipation প্রতিরোধ করার জন্য নিয়মিত হাটা একটি ভাল ব্যায়াম। অনেকেই জন্ম দানের আগে yoga করে। নিয়মিত ব্যায়াম এবং নিজেকে সচল রাখার মাধ্যমে আপনি সুস্থ প্রেগন্যান্সির অভিজ্ঞতা লাভ করবেন এবং এটা আপনার ডেলিভারিকেও সহজ করে দেবে। ডাক্তার দেখানো, ultrasound scan, blood test এগুলো নিয়মিত করতে হবে। যদি আপনি দেখেন আপনার ব্লিডিং এবং stomach contraction হচ্ছে তখন দ্রুত ডাক্তারের শরণাপন্ন হবেন।প্রথমেই বলতে চাই, গর্ভাবস্থা সাধারণত ৯ মাসের কিছু বেশি দিন থাকে। এই ৯ মাসকে ৩ ভাগে ভাগ করা হয়। প্রথম ৩ মাস কে ফার্স্ট ট্রাইমিস্টার, দ্বিতীয় ৩ মাসকে অর্থাত্‍ ৪-৬ মাস কে সেকেন্ড ট্রাইমিস্টার এবং ৬ মাসের পর থেকে বাচ্চা জন্মের আগ পর্যন্ত সময়কে থার্ড ট্রাইমিস্টার বলে। ট্রাইমিস্টারের গুরুত্ব অনেক। একেক ট্রাইমিস্টারে শিশুর গ্রোথ বা গঠন একেক রকম। তাই ট্রাইমিস্টার অনুযায়ী খাদ্য নির্বাচন করা উচিত।অনেক সময় খাদ্য থেকে আমরা সঠিক পরিমানে কিছু vitamin and mineral আছে সেগুলা পেয়ে থাকি না, তাই ডাক্তার সেগুলার জন্য ওষুধ দিয়ে থাকে।আপনার ডাক্তার আপনাকে সেগুলা দিয়ে থাকবেন। ডাক্তার এর পরামর্শ ছাড়া কোন ওষুধ খাবেন না।গর্ভাবস্থার চতুর্থ- ষষ্ঠ মাস (৪-৬ মাস) বা দ্বিতীয় ট্রাইমিস্টারের পরিচর্যা নিয়ে কিছু পরামর্শ দেওয়া হলো। অতিরিক্ত ২০০-৩০০ ক্যালরি খাবার বেশি খাওয়া প্রয়োজন এ সময়ে। সাধারণত একজন প্রাপ্ত বয়স্ক মেয়ে বা মহিলার দৈনিক ২২০০ ক্যালরি খাদ্য প্রয়োজন হয়। তাই আপনি গর্ভবতী হলে দৈনিক ২৫০০ ক্যালরি খাওয়া প্রয়োজন। এ সময়ে ভিটামিন ডি ও ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড খেতে হয় প্রচুর। কারণ এ সময়ে ব্রেন বা মস্তিষ্কের ও চোখের গঠন হয় আর এই গঠন সঠিকভাবে হওয়ার জন্য এই পুষ্টিগুলো খুব দরকার। ভিটামিন ডি পাবেন সূর্যের আলোতে, দুধে, দইয়ে, বাদামি চালে ও গমে। ওমেগা ৩ এর জন্য সামুদ্রিক মাছ ও খাবার খেতে হবে। তিসির তেলে ওমেগা ৩ থাকে। সালাদে ২ চামচ তিসির তেল মিশিয়ে সালাদ খাবেন। প্রচুর মাছ খাবেন। এ সময়ে আয়োডিন খাবেন পর্যাপ্ত পরিমাণে। কেননা, এ সময়ে বাচ্চার থাইরয়েড গ্ল্যান্ড কাজ করা শুরু করে আর থাইরয়েডের জন্য আয়োডিন অতীব প্রয়োজনীয় একটি উপাদান। শুধু আয়োডিনযুক্ত লবণ খেলেই হবেনা, ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ আকারেও আয়োডিন খাওয়া যেতে পারে। এ সময় ক্যালসিয়াম খান প্রচুর পরিমাণে। কারণ এটি বাচ্চার হাড়, মাংস ইত্যাদি তৈরিতে সাহায্য করে। ক্যালসিয়াম পাওয়া যায় দুধ, দই, আইসক্রিম, চীজ ইত্যাদিতে। সাধারণত এ সময়ে আয়রণ ৪০ মিলিগ্রাম লাগে দৈনিক। এজন্য আয়রণ ট্যাবলেট খাবেন ডাক্তারের পরামর্শমত। এ সময়ে কিছু মিনারেল ও ভিটামিন বেশ কিছু পরিমাণে খেতে হয়।নীচে সেগুলোর নাম দেয়া হলো।ক্যালরি – পাওয়া যায় প্রোটিন, ফ্যাট ও কার্বোহাইড্রেট থেকেপ্রোটিন – মাছ, মাংস, ডিম, দুধে থাকেআয়রন – মাছ, ডিম, কচুতে থাকেক্যালসিয়াম – দুগ্ধজাত খাদ্যে থাকেজিংক – মাছ, ডিম ও সামুদ্রিক খাবারে থাকেআয়োডিন – আয়োডিনযুক্ত লবণ ও সামুদ্রিক খাদ্যে থাকেভিটামিন এ –, শাক সবজি, কলিজা ও হলুদ ফলে থাকেভিটামিন ডি – দুধ ও দুগ্ধজাত খাদ্যে থাকেথায়ামিন –ঢেঁকিছাটা চালে থাকেরিবোফ্লাবিন – মাংস, কলিজা থাকেনিকোটিনিক এসিড – মাংস, বাদাম ও শস্য দানাতে থাকেএসকরবিক এসিড – টক জাতীয় ফলমূলে ও টমটোতে থাকেফলিক এসিড – , সবুজ শাকসবজি ও কলিজাতে থাকেভিটামিন বি১২ – , প্রাণীজ প্রোটিনে থাকেগর্ভাবস্থার শেষ ৩ মাস মানে গর্ভকালীন ৭ম থেকে ৯ম মাস (থার্ড ট্রাইমিস্টারে) পূর্বের মত মানে দ্বিতীয় ট্রাইমিস্টারের মত খাবার গ্রহন চালিয়ে যেতে হবে, বরং এসময় পূর্বের থেকে দৈনিক ২০০ ক্যালরিযুক্ত বেশি খাবার গ্রহন করতে বলা হয়। দ্রুত উত্তর, ডাক্তারের ফোন পেতে এবং ঔষধ নেয়ার জন্য নিচের প্রমো কোড এপ্লাই করে প্রেস্ক্রিপশন প্যাকেজ কিনুন। এতে করে ৫০% ডিস্কাউন্ট পাবেন। promo code - doc1  

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও