প্রিয় গ্রাহক, আপনার সুন্দর প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।আসলে আমরা সবাই ধীরে ধীরে এমন একটা সমাজ ব্যবস্থার মধ্যে দিয়ে বড় হচ্ছি ও আগাচ্ছি যেখানে সবকিছু নেতিবাচক দিকগুলোকে শ্রেয় মনে করা হয়। যেমন ধরুন - কোন ছোট একটা ছেলে খেলতে গিয়ে পড়ে গেলে আমরা কিন্তু কেউ তাকে বলি না পড়ে গিয়েছো এটা কোন ব্যাপার না, খেলতে গেলে একটু আকটু এরকম ব্যাথা পেতে হয়,উঠে দাঁড়াও সব ঠিক হয়ে যাবে। বরং উল্টো আরো বলি কেঁদো না, খেলা লাগবে না, চলে আসো, ছেলেদের কাঁদতে নেই। এই যে এভাবেই কিন্তু শৈশব থেকেই নেতিবাচক দিক গুলোর সাথে আমাদের এ্যাডাপ্ট করানো শিখানো হয়। এটা করতে পারবেনা, এটা ভালো না, ওর সাথে, মিশো না।সব কিছুতে না না শুনতে শুনতে বড় হওয়া এই আমরা পজিটিভলি দেখতে,শুনতে,ভাবতে,বলতে ভুলে যাই। যা আমার কাছে 6 তা অন্যের নিকট 9 হতেই পারে।তার পয়েন্ট অব ভিউ থেকে দেখা আসলে আমরা ভুলে যাই। সবকিছুর ই পজেটিভ ও নেগেটিভ সাইড রয়েছে। এখন কোন দিকটাতে ফোকাস করব তা নির্ভর করে পুরো পুরি নিজের উপর। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও