প্রিয় গ্রাহক, আপনাকে প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।এ রোগটির উৎপত্তি হয় মলদ্বারের বিশেষ ধরনের সংক্রমণ-এর কারণে। মলদ্বারের ভেতরে অনেকগুলো গ্রন্থি রয়েছে এগুলোর সংক্রমণের কারণে ফোড়া হয়। এই ফোড়া এক সময় ফেটে গিয়ে মলদ্বারের চর্তুদিকের, কোনো একস্থানে একটি ছিদ্র দিয়ে বের হয়ে আসে এবং পুঁজ নির্গত হতে থাকে। এ সংক্রমণের কারণে মলদ্বারে প্রচুর ব্যথা হয়। নিঃসরণ বা পুঁজ পড়া সাধারণত মাঝে মাঝে হয়। কখনও কখনও দু’এক মাস রোগটি সুপ্ত অবস্থায় থাকে। ফোঁড়া দেখা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ডাক্তার কাছে আসতে হবে। ফোঁড়া ফেটে পুঁজ বের হলে অনেকটা আরাম বোধ হয়। কিন্তু রোগ ভাল হয় না। আবার দুই মাস পরে এ সমস্যা আবার দেখা দেয়। এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ডাক্তারের কাছে আসলে দ্রুত এ রোগ থেকে মুক্তি মেলে। ফিস্টুলার প্রকারভেদ রয়েছে। যেমন সাধারণ ফিস্টুলা ও জটিল ফিস্টুলা। সাধারণ ফিস্টুলা অপারেশন সহজসাধ্য। কিন্তু জটিল ফিস্টুলা যেহেতু মলদ্বারের গভীরে মাংসপেশির ভেতর প্রবেশ করে তাই এর চিকিৎসাও জটিল। যেহেতু মলদ্বারের গভীরে প্রবেশ করে এবং একধাপে এই অপারেশন করলে রোগীর পায়খানা আটকে রাখার ক্ষমতা ব্যাহত হতে পারে, তাই কয়েক ধাপে সিটন প্রয়োগের মাধ্যমে করলে অধিকতর সফলতা পাওয়া যায়।আপনি ঘরে বসে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার এর পরামর্শ এবং ওষুধ এর প্রেসক্রিপশানের জন্য আমাদের প্রেসক্রিপশান প্যাকেজ টি ব্যাবহার করুন। প্যাকেজটিতে ৫০% ছাড় পেতে doc1 প্রোম কোডটি ব্যাবহার করুন। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আপনার আর কোন জিজ্ঞাসা থাকলে প্রশ্ন করুন।মায়া সবসময় আপনাদের পাশে আছে। 

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও