প্রশ্ন সমূহ
আর্টিকেল
মায়া শপ

মায়া প্রশ্নের বিস্তারিত


গ্রাহক আপনাকে ধন্যবাদ । আপনার কি কারণে ভয় লাগছে ?? অনুগ্রহ করে জানালে আপনাকে সাহায্য করতে সুবিধা হবে । 



বেশীরভাগ নারীই নরমাল ডেলিভারি প্রত্যাশা করেন।তবে  একটি বাচ্চা নরমাল হবে কি না তা অনেক গুলো বিসয়ের উপরে নির্ভর করে।  যেমন 

*মায়ের বয়স

,* মায়ের কোন শারিত্রিক অসুস্থতা আছে কি না(প্রেশার, ডায়াবেটিস, হরমনাল সমস্যা, হার্ট ডিজিজ ইত্যাদি),

* মায়ের পেল্ভিক বন যথেষ্ট প্রশস্থ কি না?

* আলট্রাসনগ্রাম অনুযায়ী বাচ্চার সব কিছু ভাল আছে কি না ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ে বিবেচনা করে একজন ডাক্তার মায়ের জন্য কোনটি ভাল হবে নরমাল না সিজার তা জানিয়ে থাকেন।

 

 

কিছু বিষয় আপনাকে নিরাপদ প্রসবের অনেকটা নিশ্চয়তা দিতে পারে। প্রথমবার মা হওয়ার ক্ষেত্রে প্রসব বেদনা আঁচ করতে পারাটা খুবই কঠিন।

 নরমাল ডেলিভারির কিছু টিপস জানা থাকলে তা আপনার জন্য সহায়ক হবে। চলুন তাহলে জেনে নিই সেই টিপসগুলো। 

১। ব্যায়ামের অভ্যাস গড়ে তুলুনঃ যদি আপনার ব্যায়াম করার অভ্যাস না থাকে তাহলে গর্ভাবস্থায় শুরু করুন কোন অজুহাত না দেখিয়ে। প্রসবের চাপ সহ্য করার জন্য শ্রোণি অঞ্চলের পেশী ও উরুর পেশীকে শক্তিশালী করার জন্য ব্যায়াম করুন। কীভাবে এই ব্যায়াম করতে হয় না জানলে আপনার চিকিৎসকের সাহায্য নিন।  মনে রাখবেন সঠিক পদ্ধতিতে ব্যায়াম না করলে আপনার ও আপনার বেবির ক্ষতি হতে পারে। তাছাড়া এসময়ে আপনার জন্য ব্যায়াম করা আদৌ ঠিক হবে কিনা সেটা অবশ্যই আপনার ডাক্তারের কাছ থেকে জেনে নিতে হবে।  

২। স্ট্রেসমুক্ত থাকুনঃ স্ট্রেসকে এড়িয়ে চলা আসলেই খুব কঠিন। তারপর ও আপনাকে চেষ্টা করতে হবে। গর্ভাবস্থায় আপনি যদি আপনার মনকে প্রশিক্ষিত করতে পারেন স্ট্রেস মুক্ত থাকার জন্য তাহলে ডেলিভারির সময়টাতেও স্ট্রেস মুক্ত থাকাটা খুব কঠিন হবেনা। প্রসবের সময় স্ট্রেস অনুভব করলে অক্সিটোসিন হরমোনের উৎপাদন কমে যায়। এই হরমোনটি প্রসবের সময় সংকোচন ঘটায়। স্ট্রেসের মাত্রা বৃদ্ধি পেলে প্রসব দীর্ঘায়িত হয়। তাই স্ট্রেস মুক্ত থাকার চেষ্টা করুন। 

৩। দমচর্চা করুনঃ সঠিক ভাবে দমচর্চা করলে স্ট্রেসের মাত্রা কমতে সাহায্য করে, এনার্জিকে উদ্দীপিত করে এবং গর্ভস্থ শিশুর বৃদ্ধি ও গঠনের উন্নতিতে সাহায্য করে। দম চর্চার ফলে শিশু পর্যাপ্ত অক্সিজেন পায় এবং প্রসবের সময় মায়ের সাথে সহযোগিতা করতে পারে। এজন্য নিয়মিত দম চর্চা করুন। 

৪। সঠিক খাবার খান ঃপ্রেগনেন্সি, প্রসব ও শিশুর জন্মের উপর গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ফেলে খাবার। কিন্তু খাওয়া নিয়ে প্রচলিত মিথ এড়িয়ে চলুন, যেমন- গর্ভাবস্থায় ঘি বা তেল গ্রহণ করলে শিশু খুব সহজেই ভূমিষ্ঠ হয়। মনে রাখবেন পরিপাক নালীর সাথে বার্থ ক্যানেলের কোন সম্পর্ক নাই। পুষ্টিকর খাবার খাওয়া আপনাকে সুস্থ রাখতে ও শক্তিশালী করতে এবং শিশুর বৃদ্ধি ও গঠনের উন্নতিতে সাহায্য করে। একজন সুস্থ মায়ের স্বাভাবিক প্রসবের মাধ্যমে সন্তান জন্ম দেয়ার সম্ভাবনা থাকে। সঠিক পুষ্টি ভ্রূণকে জন্ম প্রক্রিয়ার স্ট্রেস সহ্য করতে সাহায্য করে। কিন্তু আপনার ওজন যেন অস্বাভাবিক পর্যায়ে না চলে যায় সেদিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে। কারণ অধিক ওজন স্বাভাবিক প্রসবকে বাঁধাগ্রস্থ করতে পারে।

 ৫। প্রেগনেন্সি ও প্রসবের বিষয়ে জানুন

৬। পানি ব্যবহার করুনঃ পানি একমাত্র উপাদান যা আপনার লেবার পেইন কমাতে এবং নরমাল ডেলিভারি হতে সাহায্য করে। বাথটাবে উষ্ণ পানিতে বসে থাকুন। এছাড়াও প্রচুর পানি পান করুন। 

৭। হাঁটুনঃ প্রেগনেন্সির সময়টাতে হাঁটুন। কারণ হাঁটলে অবসাদ দূর হয়।প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০ মিনিট হাঁটা উচিত। 

 

আপনার পক্ষে যদি অনেকক্ষণ হাঁটা সম্ভব না হয় তাহলে অল্প দূরত্বে কিছুক্ষণের জন্য হলেও হাঁটুন।





পরিচয় গোপন রেখে ফ্রিতে শারীরিক, মানসিক এবং লাইফস্টাইল বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করতে পারেন Maya অ্যাপ থেকে। অ্যাপের ডাউনলোড লিঙ্কঃ http://bit.ly/38Mq0qn


প্রশ্ন করুন আপনিও