প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। প্রথমত কিছু বিষয় এখানে দেখতে হবে যেমন- ওজন, উচ্চতা, বিএমআই কত তা দেখতে হবে। নাক বন্ধভাব বা অন্য কোন উপসর্গ প্রায় হয় কিনা জানতে হবে। নাক ডাকার বিভিন্ন কারন থাকতে পারে, নাক ডাকার আওয়াজটা আসলে নাক থেকে বের হয় না। এর উৎস গলা থেকে নাকের মধ্যবর্তী অংশে। নানা কারণে এ জায়গায় বাতাস যাতায়াতে বাধা পায় বলেই মানুষ নাক ডাকে।। প্রথমত ওজন বেশি থাকলে এটি হতে পারে, তাই ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখতে হবে। শরীরের ওজন যত বেশি হবে, নাক ডাকার শঙ্কাও ততই বাড়বে। ঘাড়ের চারপাশের মেদ নাক ডাকার অন্যতম একটি কারণ। গলার ভেতরে অতিরিক্ত চর্বি জমলেও এটা হতে পারে। তবে এই অবস্থাটা মারাত্মক। কেননা, গলার মধ্যে চর্বি জমা মানে শ্বাসনালিতে বাতাস কম ঢুকবে। এতে শরীরে অক্সিজেনও কমবে। শোয়ার পজিশন এই বিষয়ে গুরুত্বপূর্ন, চিত হয়ে শুয়ে ঘুমালে এই সমস্যা বেশি হয় কেননা জিহবা পিছনের দিকে গিয়ে শ্বাসনালীকে বাধাগ্রস্থ করে। এক পাশে কাঁত হয়ে শুতে হবে। ধুমপান ও এলকোহল থেকে বিরত থাকুন।বাড়িঘর, বিছানা পরিষ্কার রাখুন। বিছানায় ধুলাবালি থাকলে, ঘর বেশি ময়লা থাকলে শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা হতে পারে। এতে নাকের নালিতে ময়লা সংক্রমিত হয়ে নাকের পেশি ফুলে উঠতে পারে। এতে নাক ডাকার আশঙ্কা বেড়ে যায়। নাকের কোন সমস্যা থাকলে, শ্বাস প্রশ্বাস নিতে সমস্যা হলেও এটি হতে পারে। সেক্ষেত্রে ডাক্তার দেখিয়ে পরীক্ষা করে নিতে হবে। বয়সের কারনে কারো কারো শরীরের কোষের স্থিতিস্থাপকতা কমে গিয়ে হতে পারে, সেক্ষেত্রে একটি ব্যায়াম কাজে দিবে।ব্যায়ামঃ চোয়ালের নিচের অংশ ওপরের অংশ থেকে সামনে কিছুটা প্রসারিত করুন। আবার আগের অবস্থানে নিয়ে যান। টানা ১০ বার কাজটি করুন। এভাবে দিনে ৭ থেকে ১০ বার ব্যায়ামটি করতে পারেন।যাঁদের ঠান্ডা লেগেই থাকে এবং এ কারণে নাক বন্ধ থাকে, তাঁদের নাক পরিষ্কার করে ঘুমোতে যাওয়া উচিত।এভাবে বিষয়গুলো মাথায় রেখে কিছুদিন পরামর্শ মেনে চলে দেখুন। আশা করি উপকৃত হবেন। ধন্যবাদ।মায়া.

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও