কানে ধপ ধপ শব্দপ্রিয় গ্রাহক আপনাকে ধন্যবাদ। আমি কি আপনাকে কিছু প্রশ্ন করতে পারি? আপনার বয়স কত? আপনি ছেলে না মেয়ে? আপনার ওজন কত?আপনার কি কখন কানে পানি গিয়েছিল? ধপ দপ,শোঁশোঁ শব্দ কানের বা শরীরের অন্য কোনো রোগের উপসর্গ, যা রোগী তার কানে অনুভব করে। বাইরের কোনো শব্দ ছাড়াই নিজের কানে অস্বাভাবিক শব্দ শোনার অসুখটির নাম 'টিনিটাস'।টিনিটাসের কারণটিনিটাসের বড় কারণ বয়সজনিত শ্রবণশক্তি হ্রাস পাওয়া। তবে উচ্চশব্দের মধ্যে বসবাসকারী যে কারো এটি হতে পারে। আরো কিছু সাধারণ কারণের মধ্যে আছে-* কানের মধ্যে খৈল বা ময়লা জমা।* কানে পানি গেলে।* কিছু ওষুধ সেবন যেমন-অ্যাসপিরিন ও অ্যান্টিবায়োটিক* ক্যাফেইনযুক্ত পানীয়, যেমন-কফি, পান* কানে ইনফেকশন বা কানের পর্দা ফেটে যাওয়া* দাঁত ও চোয়ালের জয়েন্টে সমস্যা* কানে আঘাত পাওয়া বা আকস্মিকভাবে জোরে বাতাস প্রবেশ করা* ক্যান্সার চিকিৎসার জন্য রেডিয়েশন থেরাপির প্রয়োগ* মারাত্মক অপুষ্টিজনিত বা অনিয়ন্ত্রিত ডায়েটিংয়ের মাধ্যমে হঠাৎ বেশি ওজন হ্রাস পেলে* রক্তনালির কিছু সমস্যা* উচ্চ রক্তচাপ* নার্ভের কিছু সমস্যা* মাইগ্রেন* শারীরিক অন্যান্য কিছু অসুখ, যেমন- রক্তশূন্যতা, কানের ভিতরের কোন সমস্যা থাইরয়েডজনিত অসুখ ইত্যাদি।ঘরের চিকিৎসা* ক্যাফেইনযুক্ত পানীয়, যেমন কফি এড়িয়ে চলুন* কানে কাঠি দিবেন না।* কানে যেন পানি না যায়। কান সুকনা রাখার চেষ্টা করুন। * অ্যালকোহল পান করবেন না* ধূমপান করবেন না। কারণ নিকোটিন কানের ভেতরের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র রক্তনালি সরু করে রক্ত প্রবাহ কমিয়ে দেয়। এতে টিনিটাসের প্রকোপ বাড়ে।* অ্যাসপিরিন ও ব্যথানাশক যথাসম্ভব কম সেবন করবেন* নিয়মিত ব্যায়াম করুন। ব্যায়ামে রক্তনালিতে রক্ত প্রবাহ বাড়ে। এতে টিনিটাসের প্রকোপ কমে। তবে সাইকেল চালানোর মতো ব্যায়াম এ সময় না করা ভালো।* উচ্চ শব্দ এড়িয়ে চলুন। কানে হেডফোন লাগাবেন না। বরং কান তুলা বা এয়ার প্লাগ দিয়ে বন্ধ রাখুন।* কারো কারো ক্ষেত্রে ঘরে মৃদুস্বরে গান বাজালে টিনিটাস কম হতে দেখা যায়।কখন ডাক্তার দেখাবেন* যদি শরীরের কোনো অংশে অবশ অবশ লাগে বা ঝিমঝিম করে* কানে শুনতে অসুবিধা হলে বা কানে না শুনতে পেলে* ভার্টিগো বা মাথাঘোরার সমস্যা হলে* এক সপ্তাহের বেশি সময় টিনিটাস থাকলে* শরীরের ভারসাম্য বজায় রাখতে অসুবিধা হলে* বমি হলে* ঘন ঘন কানে ধপ দপ, শোঁ শোঁ বা টিনিটাস হলেটিনিটাস থেকে বাঁচতে* উচ্চ শব্দযুক্ত পরিবেশে কাজ বা বসবাস করা যাবে না। সেটা সম্ভব না হলে এ রকম পরিস্থিতিতে শব্দ কম শুনতে এয়ার প্লাগব্যবহার করতে হবে।* কাত হয়ে কানের নিচে হাত রেখে ঘুমানো যাবে না।* হেডফোনে যা-ই শুনুন, উচ্চৈঃস্বরে শুনবেন না।* মুটিয়ে যাওয়া মানুষের টিনিটাস বেশি হয়। তাই ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন।* কটন বাড বা এ ধরনের কোনো কিছু দিয়ে কান চুলকাবেন না। এতে কানের পর্দা ফেটে গিয়ে কানে শোঁ শোঁ শব্দ হতে পারে।* কানে ময়লা জমলে তা বের করতে কাঠি ব্যবহার না করে অলিভ অয়েল দিন। এতে কানের ময়লাও বের হবে, পর্দাও ক্ষতিগ্রস্ত হবে না।আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে , মায়া আপাকে জানাবেন।রয়েছি পাশে সবসময়, মায়া আপা।

পরিচয় গোপন রেখে ফ্রিতে শারীরিক, মানসিক এবং লাইফস্টাইল বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করতে পারেন Maya অ্যাপ থেকে। অ্যাপের ডাউনলোড লিঙ্কঃ http://bit.ly/38Mq0qn


প্রশ্ন করুন আপনিও