কতদিন ধরে আপনার এই সমস্যা হচ্ছে ?আপনার পায়ের কোন জয়েন্ট কি ফুলেছে বা লাল হয়ে আছে ? আপনার কি বাতের সমস্যা আছে ? আপনার অন্যকোন শারীরিক অসুস্থতা আছে ? আমাদের জানান।পা ব্যথা খুব সাধারণ একটি সমস্যা যা যেকোন বয়সের মানুষের হয়ে থাকে।বিভিন্ন কারনে পায়ে ব্যথা হতে পারে।তারমধ্যে আছে ঃ- আরামদায়ক জুতো না পরা।- অনেক বেশি হাঁটা- দু’পায়ের ওপর ভর করে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকাআর্থ্রাইটিস - বিভিন্ন ধরণের ফ্রাকচার- দেহে খনিজের অভাব- ডায়াবেটিস ইত্যাদিসাধারণত রক্তে লবণের ঘাটতি হলে বা মাংসপেশিতে রক্তপ্রবাহ কমে গেলে পা কামড়াতে পারে। সারাদিন কি অনেক পরিশ্রম করেন? রোদে ঘোরাঘুরি করার ফলে শরীরে লবনের ঘাটতি তৈরি হয়। ফলে হাত পা কামড়াতে পারে। আপনার যথেষ্ট বিশ্রামের প্রয়োজন আছে। সেই সাথে প্রচুর তরল খাবার ও পানি খাবেন। সেই সাথে আপনাকে পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে এবং এক্সার্সাইজও করতে হবে নিয়মিত। অনেক ক্ষেত্রে একেবার অচল থাকার পর হটাৎ চলাফেরা শুরু করলেও হাত পা কামড়ায়। এছাড়া, শরীরে ক্যালসিয়াম এর অভাব হলেও হাত-পা কামড়াতে পারে।সেক্ষেত্রে একজন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে ক্যালসিয়াম খেতে হবে।তবে স্বাভাবিক অবস্থায় প্যারাসিট্যামল খেতে পারেন। তবে নিয়মিত না।এছাড়া, এরজন্য কিছু জিনিস করুন ঃ- বিশ্রামঅতিরিক্ত হাঁটার পর পা-কে কিছুটা বিশ্রাম দেওয়াই উচিৎ। শরীরের পুরো ভারটা পা থেকে সরিয়ে নেওয়া হলে পা সেরে উঠবে দ্রুত। দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকা, লম্বা সময় হাঁটা এবং সিঁড়ি ভাঙ্গার কাজগুলো আপাতত বন্ধ রাখুন। সম্ভব হলে বিশ্রাম নেবার সময়ে জুতো খুলে রাখুন। এতে পা আরাম পাবে।-  ঠাণ্ডা এবং গরমসেক * লম্বা সময় ধরে হাঁটলে পা ব্যথার পাশাপাশি পা ফুলেও যেতে পারে। এক্ষেত্রে ঠাণ্ডা বা গরম সেঁক খুব আরাম দেয়। আইস প্যাক পায়ের ওপর দিয়ে রাখতে পারেন ১৫-২০ মিনিটের জন্য, দিনে ৩ বার। কারও কারও ক্ষেত্রে গরম সেঁক ভালো কাজ করে।* সেক্ষেত্রে হট ওয়াটার ব্যাগ ব্যবহার করতে পারেন। হাঁটার পর ২০ মিনিট সহনীয় গরম পানিতে পা ডুবিয়ে রাখতে পারেন। রক্ত চলাচল বৃদ্ধি করে এমন কিছু এসেনশিয়াল এই পানিতে মিশিয়ে নিতে পারেন। করতে পারেন পায়ে মাসাজ। তবে মাসাজ করতে গিয়ে ব্যথা লাগলে তা না করাই ভালো।- পা উঁচু করে রাখুনহাঁটার সময়ে পায়ে যে চাপ পড়ে মূলত তার জন্যই ব্যথাটা হয়। বিশেষ করে হিল পরলে এই চাপ আরও বেশি হয়। এই ব্যথা কমাতে দিনে কয়েকবার ১৫ মিনিট ধরে আপনার পা উঁচু করে রাখুন। আপনার পেলভিস থেকে কিছুটা উঁচু জায়গায় পা উঠিয়ে বিশ্রাম করলে পা আরাম পাবে।- ম্যাসেজউষ্ণ অলিভ ওয়েল, নারকেল তেল অথবা মাস্টার্ড তেল একত্রে নিয়ে আক্রান্ত জায়গায় মাখুন।১০ মিনিট এভাবে ম্যাসাজ করুন।প্রয়োজন অনুসারে দিনে দুই বা তিনবার এভাবে ম্যাসাজ করুন।এ ছাড়া গরম পানির মধ্যে লবণ নিয়ে ১৫ মিনিট পা ভিজিয়ে রাখলেও পায়ে ব্যথা অনেকটা কমে।এরপরও সমস্যা থাকলে একজন মেডিসিন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।তবে, আপনার যদি সাথে পায়ের কোন জয়েন্ট এ ফোলা থাকে বা লাল হয়ে যায়, তাহলে একজন মেডিসিন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে এর কারন বের করে উপযুক্ত চিকিৎসা নিতে হবে।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও