প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। হস্তমৈথুন খুবই স্বাভাবিক একটি প্রক্রিয়া। একটা নির্দিষ্ট বয়সের পর শারীরিক ও পারিপার্শ্বিক নানান কারণে উঠতি বয়সের ছেলেরা অভ্যস্ত হয়ে পড়েন হস্তমৈথুনে। কোন জিনিস যখন খুব বেশি করা হয়, সেটা অবশ্যই খারাপ। হস্তমৈথুনও তাই। চিকিৎসকদের মতে সপ্তাহে ১ থেকে ৩ বার হস্তমৈথুন মোটেও দোষের কিছু নয়। বরং এতে মানসিক স্বাস্থ্য ভালো থাকে। হস্তমৈথুন করতেই হবে এমন কোন কথা নেই, তবে সপ্তাহে ২/৩ বার করলে দোষের কিছুই নেই। তবে হ্যাঁ, কেউ যদি দৈনিক হস্তমৈথুন করেন, কিংবা দিনে একাধিকবার করতে থাকেন, বিষয়টি নিঃসন্দেহে তার স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক। বেশি বেশি হস্ত মৈথুন করলে বেশ কিছু সমস্যার মুখোমুখি হতে পারেন আপনি। -যেহেতু বীর্য তৈরি হয় অন্ডকোষে, তাই বেশি হস্তমৈথুনের ফলে, অণ্ডকোষে বীর্যরস তৈরিতে ব্যাঘাত ঘটতে পারে। বাড়তি বীর্য তৈরির চাপ সামলাতে হিমশিম খেতে পারে অণ্ডেকোষ। ফলে অণ্ডথলিতে ব্যাথা হওয়া অস্বাভাবিক নয়। -অতিরিক্ত হস্তমৈথুনে মস্তিষ্কে বীর্য তৈরির হরমোনের ঘাটতিও দেখা দিতে পারে। সেক্ষেত্রে মস্তিষ্কের ওপর বাড়তি চাপ পড়ে। ফলে মাথাব্যাথা সহ মস্তিষ্কের নানা সাময়িক ত্রুটি দেখা দিতে পারে। -ঘন ঘন হস্তমৈথুনে বীর্য পাতলা হয়ে যায় খুব স্বাভাবিকভাবেই। যদি ক্রমাগত ব্যাপারটা চালিয়ে যেতে থাকেন, স্বাস্থ্য সমস্যা তৈরি হবে। -তাছাড়া অতিরিক্ত হস্তমৈথুনের ফলে যৌনাঙ্গে ব্যাথা ও আংশিক বিকৃতি ঘটতে পারে। -শরীর চড়া অবস্থায় হস্তমৈথুন করলে, প্রসাবে জালাপোড়া বেড়ে যায় খুব বেশিমাত্রায়। তাই হস্তমৈথুন নিয়ন্ত্রিত ও সতর্কতার সাথে করা উচিত। -হস্তমৈথুনে অভ্যস্ত অনেক পুরুষই পরবর্তী যৌন জীবনে সুখী হতে পারেন না। কারণ এই হস্তমৈথুন তাঁদের অভ্যাসে পরিণত হয়ে যায় আর এটাতেই তাঁরা স্বস্তি বোধ করেন। মনে রাখবেন, যৌন বিষয়ক কোনো সমস্যা যদি দীর্ঘদিন ধরে চলতে থাকে তখন অবহেলা না করে একজন যৌনরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিবেন। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও