প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। মানব শরীরে পেটের চর্বির সমস্যা হচ্ছে বড় সমস্যা। খাওয়া-দাওয়া ও চলা-ফেরা থেকে শুরু করে সব কাজেই সমস্যা সৃষ্টি করে এই পেটের অতিরিক্ত চর্বি। একটা মেয়ে বা ছেলে যতই মোটা হোক কিন্তু তার পেটের চর্বি যদি কম থাকে তাহলে তাকে অনেক সুন্দর ও দেহের গঠন দেখতেও ভাল লাগে। আমরা অনেকেই পেটের চর্বি কমানোর জন্য জিম এ গিয়ে বিভিন্ন ধরনের ব্যায়াম করে থাকি। কিন্তু এতে পেটের গঠন টা সুন্দর হয় কিন্তু চর্বি খুব একটা কমে না। আবার অনেকে দেখা যায় সকালে উঠে ৩০-৬০ মিনিট জগিং করে থাকে । এই দীর্ঘ সময় জগিং করার ফলে আপনার হাত, পা ও শরীর ব্যাথা হয়ে যায় । এইজন্য পরদিন আর জগিং এ যাওয়া হয় না অলসতা কাজ করে। সে জন্য প্রতিদিন ১০-১৫ মিনিট হাটাহাটি করা বা জগিং করা উচিত। এতে আস্তে আস্তে আপনার পেটের চর্বি কমতে থাকবে। তাছাড়া চর্বি ও তৈলাক্ত খাবার, অতিরিক্ত কোল্ড ড্রিঙ্কস  বর্জন করতে হবে । বেশি করে পানি আর সবজি খেতে হবে। আমরা অনেকেই রাতে খাবারের পর সঙ্গে সঙ্গে শুয়ে পরি। এটা আবার কারো কারো অভ্যাসে পরিনতি হয়ে যায় । কিন্তু এটা ঠিক না। এতে করে পেটের চর্বি আরো বাড়ে, খাওয়ার পরে অবশ্যই ৫-১০ মিনিট হাটার পর বেডে যান । এতে করে আপনার পেটের চর্বি কন্ট্রোলে থাকবে। আমরা একটু নিয়মের মধ্যে দিয়ে চলা-চল করলেই পেটের অতিরিক্ত চর্বি কন্ট্রোলে আনতে পারি। এছাড়া  কিছু সহজ অভ্যাসের মাধ্যমে কমিয়ে ফেলতে পারেন শরীরের অতিরিক্ত মেদ।* প্রতিদিন তিন কোয়া রসুন: প্রতিদিন সকালে উঠেই খালি পেটে ২/৩ কোয়া রসুন চিবিয়ে খেয়ে নিন, এর ঠিক পর পরই পান করুন লেবুর রস। এটি আপনার পেটের চর্বি কমাতে দ্বিগুণ দ্রুতগতিতে কাজ করবে। তাছাড়া দেহের রক্ত চলাচলকে আরো বেশি সহজ করবে এটি।* লেবুর রস: এক গ্লাস গরম পানিতে অর্ধেকটা লেবু চিপে নিন, এতে এক চিমটি লবণমিশিয়ে নিন। চিনি দেবেন না। এবার পান করুন প্রতিদিন সকালে। এছাড়া প্রতিবেলা খাবার ১৫ মিনিট পরে কুসুম গরম পানিতে ১টুকরা লেবুর রস মিশিয়ে খান  এটি আপনার দেহের বাড়তি মেদ ও চর্বি কমাতে সব চেয়ে ভালো উপায়।* চিনিযুক্ত খাবার খাবেন না: মিষ্টি বা মিষ্টি জাতীয় খাবার, কোল্ড ড্রিংকস এবং তেলে ভাজা স্ন্যাক্স থেকে দূরে থাকুন। কেননা এ জাতীয় খাবারগুলো আপনার শরীরের বিভিন্ন অংশে, বিশেষত পেট ও উরুতে খুব দ্রুত চর্বি জমিয়ে ফেলে। তাই এগুলো খাওয়ার পরিবর্তে ফল খান।* মশলা খান: রান্নায় অতিরিক্ত মশলা ব্যবহার করা ঠিক নয়। তবে কিছু মশলা ওজন কমাতে সাহায্য করে ম্যাজিকের মতো। রান্নার ব্যবহার করুন দারুচিনি, আদা ও গোলমরিচ। এগুলো আপনার রক্তে শর্করার পরিমাণ কমাবে ও পেটের মেদ কমাতে সাহায্য করবে।* মাংস থেকে দূরে থাকুন: অতিরিক্ত চর্বিযুক্ত মাংস যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলুন। এর বদলে বেছে নিতেপারেন কম তেলে রান্না করা চিকেন।* পর্যাপ্ত ঘুমান: ঘুম ভালো হলে শরীরে মেদ কম জমে এবং জমা মেদও ঝরতে সাহায্য করে।* মানসিক চাপের বোঝা বইবেন না : মানসিক চাপ যতটা পারবেন কম নেওয়ার চেষ্টা করুন। কারণ মানসিক চাপের ফলে আপনার শরীরে নানারকম সমস্যা তৈরি হতে পারে। ফলে শরীরের পাচন ক্ষমতা কমে যায় এবং শরীরে মেদ জমতে শুরু করে।* প্রচুর পানি পান করুন: প্রতিদিন প্রচুর পানি পান করার ফলে এটা আপনার দেহের মেটাবলিজম বাড়ায় ও রক্তের ক্ষতিকর উপাদান প্রস্রাবের সঙ্গে বের করে দেয়। মেটাবলিজম বাড়ার ফলে দেহে চর্বি জমতে পারে না ও বাড়তি চর্বি ঝরে যায়।* কাজে সক্রিয় হন: অফিসের কাজ আজকাল বসে বসে হয়, সেখানে শরীরের সচল হওয়ার খুবএকটা সুযোগ নেই। তাই চেষ্টা করুন একটি আগের বাসস্টপে নেমে হেঁটে বাকি রাস্তা যান, সিঁড়ি দিয়ে উঠুন। এর ফলে শরীর অনেকটা সক্রিয় হয়। মেদ জমার সুযোগই পাবে না।* প্রতিদিন ফল ও সবজি খান: প্রতিদিন সকাল ও সন্ধ্যায় এক বাটি ভর্তি ফল ও সবজি খাবার চেষ্টা করুন। এতে আপনার শরীর পাবে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেন্ট, মিনারেল ও ভিটামিন। আর এগুলো আপনার রক্তের মেটাবলিজম বাড়িয়ে পেটের চর্বি কমিয়ে আনবে সহজেই।*কিছু ফ্রি হ্যান্ড এক্সারসাইজ করবেন। আপনার যেহেতু সিজার হয়েছে, তাই ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোন পেটের ব্যায়াম করবেন না। *প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০মিনিট মধ্যম গতিতে হাটবেন। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া কে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও