হ্যালো মায়া আপু আমার নাম মোঃ সুবর্ণ মাহমুদ l আমি একজন বিবাহিত পুরুষ lআমার বয়স 29l আমার স্ত্রীর নাম লিমা আক্তার তার বয়স 22 বছরl আমরা বিয়ে করেছি প্রায় 10 বছরl আমাদের একটি ছেলে সন্তান আছেl বৈবাহিক জীবনে আমার মনে হয় আমার স্ত্রী আমাকে যথেষ্ট পরিমাণ শারীরিক সুখ দিতে পারেনা l আমার স্ত্রীর শারীরিক চাহিদা খুবই কম l আমি তাকে শারীরিক সম্পর্কের সময় নানাভাবে উৎসাহিত করে কিন্তু আমার কাছে মনে হয় তার চাহিদা খুবই কমl এবং আমি যথেষ্ট পরিমাণ সুখ থেকে বঞ্চিত হয়l এক্ষেত্রে আমি আমার স্ত্রীর জন্য কি ব্যবস্থা নিতে পারি এবং আমার স্ত্রীর কি করনীয়l কি করলে আমার স্ত্রীর যথেষ্ট পরিমাণ শারীরিক চাহিদা তৈরি হবে দয়া করে বলবেনl ধন্যবাদ

গ্রাহক,আপনার মনের কথা শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ। আপনার দীর্ঘ বিবাহিত জীবন একসাথে চলার পর বর্তমানে আপনি অনুভব করছেন আপনার স্ত্রীর যৌন চাহিদা কম এবং আপনি সন্তুষ্ট নন। আপনি শারীরিকভাবে সুখ অনুভব করছেন না, তাই কি?আমার সাথে শেয়ার করা যাবে, কত সময় ধরে আপনার এমন মনে হচ্ছে যেহেতু প্রায় ১০ বছর আপনারা একসাথে কাটাচ্ছেন? আপনার স্ত্রীর কোন শারীরিক অসুস্থতা/ মানসিক চাপ আছে কি? তিনি যেহেতু মা হয়েছেন, একজন মেয়ে সন্তান জন্মদানের পরে অনেক পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায়। হরমনের কারণে শারীরিক এবং মানসিক পরিবর্তন আসে। মেয়েদের ক্ষেত্রে যৌন চাহিদা যত না শারীরিক তার চেয়ে মানসিক চাহিদার উপর নির্ভর করে। মানসিকভাবে যদি মেয়েরা প্রস্তুত না থাকে বা মানসিক চাপে থাকে তাহলে মেয়েদের যৌন চাহিদা কম হয়। সেজন্য আপনি খেয়াল করে দেখতে পারেন আপনার স্ত্রীর সাথে কি হচ্ছে?বেশ কয়েকটি কারণ মহিলাদের প্রভাবিত করতে পারে। যেমনঃ  ---শারীরিক কারণ* রক্ত স্বল্পতা, যা নারীদের মাসিক ঋতুচক্রকালীন রক্তে আয়রনের পরিমাণ হ্রাস পাওয়া থেকে প্রকট হয়।* মদ্যপানে আসক্তি।* ডায়াবেটিস জাতীয় রোগ।* সন্তান প্রসব: সন্তান প্রসবের পরবর্তী কিছু সময়কাল নারীর যৌন আকঙ্খা সম্পূর্ণ হারিয়ে যায়। এটি শরীরে হরমোনাল পরিবর্তনের সাথে প্রায় সরাসরি জড়িত। বেশির ভাগ নারী সন্তান জন্মদেবার পর মানসিকভাবে অনেকটা বিক্ষিপ্ত থাকেন তাই তারা মিলন নিয়ে চিন্তা করার অবকাশ পান না।* এছাড়া কিছু ঔষধের পাশ্বপ্রতিক্রিয়াতেও নারী যৌন আকাংখা হারাতে পারেন।---মনস্তাত্ত্বিক কারণ* অবসাদ কিংবা বিষণ্ণতা।* দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হওয়া: যখন নারী দুশ্চিন্তাগ্রস্ত থাকে তখন এ্যডরিনাল (মুত্র) গ্রন্থি ইষ্ট্রোজেন এবং টেষ্ট্রোষ্টিরন হরমোন সৃষ্টিতে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। ইষ্ট্রোজেন এবং টেষ্ট্রোষ্টিরন হরমোনই নারী শরীরে যৌন আকাঙ্খা উৎপন্ন করে।* উদ্বিগ্নতা * স্বামীর সাথে প্রচণ্ড মানসিক বিবাদ।এছাড়াও কিছু কারণ থাকতে পারে। যেমনঃ--পরিস্থিতি অনুযায়ী যৌন সঙ্গীদের উপর বিশ্বাসের অভাব। --যেখানে যৌনতা ঘটে সেই পরিবেশটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, লোকালয় বা অত্যন্ত ব্যক্তিগত জায়গার কারণে কিছু মহিলার অস্বস্তি বোধ করতে পারে। নারীর যৌন অনীহা শারীরিক কিংবা মানসিক উভয় কিংবা যেকোনো একটি কারণে হতে পারে।যৌন অনীহায় স্ত্রীর করণীয়আপনি যদি অনুমান করতে না পারেন যৌনকর্মে আপনার অনীহার কারন কী -তাহলে ডাক্তারের সাথে দেখা করুন। পরিবার পরিকল্পনা অফিসের নারী কর্মীও আপনাকে এ ব্যপারে সহযোগীতা করতে পারেন। কিছুক্ষেত্রে ডায়াগোনোসিসের প্রয়োজন পড়তে পারে।স্বামীর করণীয়স্বামী যদি অনুমান করতে পারেন যৌনকর্মে স্ত্রীর অনীহা, তাহলে স্ত্রীকে সথেষ্ট সময় দিন। তার সাথে এ বিষয়ে খোলামেলা কথা বলুন যেন তার মনের কথা জানতে এবং বুঝতে পারেন।কিভাবে তিনি উপভোগ করবেন সেই দিক গুলো নিয়ে আলোচনা করতে পারেন। তাকে মানসিক ভরসা দিয়ে ধীরেধীরে সহবাসে আনন্দ পেতে উৎসাহ দিন যেন তিনি উপভোগ করেন। এর পাশাপাশি যদি মনে করেন কোন বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করলে সুবিধা হয় সেটাও করতে পারেন।  আপনি এ বিষয় গুলো ভেবে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে পারেন। ধন্যবাদ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও