প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। হঠাৎ করেই কানে কম শোনা— এমন ঘটনা বলতে গেলে অধিকাংশ মানুষের জীবনেই ঘটেছে। এটি এক বা উভয় কানেই হতে পারে এবং এর সাথে সাথে কানে শব্দ হওয়ার সমস্যাও হতে পারে। ঘুম থেকে উঠেই হয়ত কানে না শোনার অভিজ্ঞতা হতে পারে যা রাতে ঘুমানোর সময় ও ছিল না। অথবা কয়েকদিন যাবত কানে কম শোনার অভিজ্ঞতাও হতে পারে আপনার। হঠাৎ করে কানে কম শোনা উচ্চ বা নিম্ন কম্পাংকের হতে পারে এবং এর ফলে কথা বুঝতে পারার ক্ষমতাও কমে যায়।  এছাড়াও কিছু ভেস্টিবুলার সিম্পটম ও দেখা যায় যেমন- মাথা ঝিম ঝিম করা, ভারসাম্যহীনতা অথবা মোশন সিকনেস। হঠাৎ করেই কানে কম শোনার রিস্ক ফ্যাক্টর হিসেবে অটোইমিউন ডিজিজ যেমন- লুপাস, কোগান সিনড্রোম অথবা আয়রনের ঘাটতির ফলে অ্যানেমিয়াকে  চিহ্নিত করা হয়। হঠাৎ করেই কানে কম শোনার কারণ- ক. মানসিক বা দৈহিক আঘাত যেমন- মাথায় আঘাত পেলে বা বহিরাগত কোনো বস্তুর কারণে কানের পর্দা ক্ষতিগ্রস্ত হলে, প্রচন্ড শব্দের কারণে অথবা কানের অপারেশন হলে। খ. ব্যারোট্রমা হলে (কানের ভেতরের ও বাহিরের বায়ুর ভারসাম্যের সমস্যা হলে হয়)। গ. অটোটক্সিক ঔষধ যেমন- জেন্টামিসিন, ফিউরোস্যামাইড (ল্যাসিক্স) অথবা অ্যাসপিরিনের বেশি মাত্রা। ঘ. ভাইরাস ইনফেকশনের কারণে।  ঙ. স্নায়বিক সমস্যা। চ. মিনিয়ারস ডিজিজ (মাথা ঘুরানো)। ছ. টিউমার খুব দ্রুত বৃদ্ধি পেতে থাকলে (বিরল)। জ. সাপের বিষের কারণে (বিরল)। ঝ. রক্ত প্রবাহের পরিবর্তন এবং মধ্যকর্ণে কম অক্সিজেন পৌঁছানোর কারণে তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কানে কম শোনার কারণ নির্ণয় করা সম্ভব হয়না। তখন একে আইডিওপ্যাথিক হেয়ারিং লস বলা হয়। হঠাৎ করেই কানে কম শোনার সমস্যা দেখা দিলে যা করবেন— হঠাৎ করেই কানে কম শোনার সমস্যার ক্ষেত্রে জরুরি ভিত্তিতে নিরাময়ের ব্যবস্থা করা উচিৎ। যত দ্রুত আপনি চিকিৎসকের কাছে যাবেন তত দ্রুত আরোগ্য লাভ করবেন। একজন বিশেষজ্ঞ অটোলেরিঞ্জোলজিস্ট এর কাছে যাওয়া ভালো। চিকিৎসা হঠাৎ করেই কানে কম শোনা রোগের চিকিৎসা কারণের উপর নির্ভর করে। ব্যারোট্রমা বা অন্য আঘাতের ক্ষেত্রে কান ক্রমান্বয়ে নিজে নিজেই সুস্থ হয়ে ওঠে। ইনফেকশনের ক্ষেত্রে কোর্স সম্পন্ন করতে হয়। যদি ঔষধের বিষাক্ততার কারণে হয়ে থাকে তাহলে চিকিৎসক সেই ঔষধ সেবন করতে বারণ করবেন। দ্রুত শ্রবণ ক্ষমতা কমে যাওয়ার নির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসা নেই। কিছু গবেষণায় পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে কোনো চিকিৎসা ছাড়াই স্বতঃস্ফূর্তভাবে শ্রবণ ক্ষমতা ফিরে আসে। অন্য গবেষণায় বলা হয় যে, করটিকোস্টেরয়েড ঔষধ গ্রহণ করলে উপকারিতা পাওয়া যায়। আপনার চিকিৎসকই নির্ধারণ করবেন আপনার কী ধরনের চিকিৎসা প্রয়োজন। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও