প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে প্রাথমিক ভাবে জ্বর, সর্দি, কাশি, গলাব্যথা, শ্বাসকষ্ট  ছাড়াও ডায়াবিয়া হতে পারে। মারাত্মক আকার নিলে নিউমোনিয়াও হতে পারে। সরাসরি ফুসফুসে সংক্রমণ ঘটায় এই ভাইরাস। বেশি আক্রান্ত হন কম প্রতিরোধী ক্ষমতাসম্পন্ন মানুষরা। করোনাভাইরাসে আক্রান্তের কাশি-হাঁচির ড্রপলেট থেকে এই রোগ ছড়ায়। এক মিটার দূর পর্যন্ত এই ভাইরাস বাতাসে চলাফেরা করতে পারে। আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে এলে সুস্থ মানুষের শরীরে এই ভাইরাস সহজেই ঢুকে পড়ে। লক্ষণ প্রকাশ পায় এক সপ্তাহ পর। ফলে বোঝাই যায় না কার শরীরে ভাইরাস আছে, না নেই। করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে করণীয়; ঘন ঘন নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধানে হাত ধুতে হবে। হাত ধোবেন আইসোপ্রোপাইল অ্যালকোহল মেশানো হ্যান্ডওয়াশ বা সাবান দিয়ে। ঘর থেকে বের হওয়া কমাতে হবে। লকডাউন, আইসোলেশন পদ্ধতি মেনে চেষ্টা করতে হবে। অসুস্থ হলে মাস্ক পরুন। রাস্তার ধুলোবালি এড়িয়ে চলুন। যেখানে সেখানে কফ বা থুতু ফেলা বন্ধ করুন। বিদেশ ভ্রমণ ও প্রবাস থেকে আসা লোকজনের সঙ্গও এড়িয়ে চলুন। অন্যের থেকে অন্তত ৩ ফিট দূরত্বে থাকুন। অসুস্থ হলে বাড়ির বাইরে বের হওয়া থেকে বিরত থাকুন।  . ঘরের বাইরে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। ২. প্রচুর ফলের রস ও পানি পান করতে হবে। ৩. সাবান ও পানি দিয়ে অন্তত ২০ সেকেন্ড ধরে হাত ধুতে হবে। ৪. কিছু খাওয়া ও রান্না করার আগে সেগুলো ধুতে হবে। ৫. ডিম বা মাংস রান্নার সময় ভালো করে সিদ্ধ করতে হবে। ৬. ময়লা কাপড় জমিয়ে না রেখে দ্রুত ধুয়ে ফেলতে হবে। ৭. থাকার ঘর ও কাজের জায়গা নিয়মিত পরিস্কার রাখতে হবে। খুব বেশি প্রয়োজন না হলে আপাতত ঘরের বাইরে বের না হওয়াই ভাল। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও