গ্রাহক  আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। আপনি নিজের অনুভুতির ব্যাপারে সচেতন যা খুবই ইতিবাচক। গ্রাহক আপনি আপনার আবেগের প্রতি বেশ সচেতন যা খুবি ইতিবাচক। রাগের কারনে কি আপনাদের স্বাভাবিক জীবন ব্যাহত হয়?   রাগ মানুষ এর বেসিক ইমোশন। সবারই রাগ আছে। তাই রাগ হওয়া মানুষ এর খুবই সাধারণ ন্যাচার।তবে রাগকে কিভাবে প্রকাশ করা হচ্ছে সেটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। গ্রাহক কি ভেবে রাগ হয় শেয়ার করা যায়? গ্রাহক আপনি কি আত্নহত্যার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন?রাগের কারণেই কি নিজের জীবনকে শেষ করে দিতে চাইছেন?আত্নহত্যার মধ্যে দিয়ে সবসমস্যার সমাধান হয়না বরং বাড়ে তাইনা। তাই নিজের চিন্তাকে নিজের জীবন রক্ষার প্রতি ফিরিয়ে আনা যায় কি ভেবে দেখা যায়। গ্রাহক রাগ যেহেতু বেসিক ইমোশন তাই রাগকে কিভাবে প্রকাশ করা হচ্ছে সেটা খুব গুরুত্বপূর্ণ।  রাগ কে পজিটিভ ভাবে প্রকাশ করা সবার জন্য ই ভালো। পজিটিভ ভাবে বলতে বুঝায় অন্যের কোনো ক্ষতি না করে বা নিজের কোনো ক্ষতি না করে রাগ কে প্রকাশ করা।রাগ প্রকাশ করার জন্য সর্বপ্রথম কোন কোন ক্ষেত্রে আপনার রাগ হয় সেটা চিহ্নিত করার চেষ্টা করুন।রাগের ফলে কি অনুভূতি হচ্ছে সেটা বুঝার চেষ্টা করুন।রাগ হলে কিছু সময় নিন সেই স্থান টা থেকে বেরিয়ে যেতে পারেন এ সময়ে ১-১০ পর্যন্ত গুনতে পারেন।এরপর আপনার যা বলার তা প্রকাশ করতে পারেন।গ্রাহক যদি সম্ভব হয় তাহলে তার সাথে কথা বলতে পারেন।ঠান্ডা মাথায় জানতে চাইতে পারেন যে তিনি কি কারনে এমন করছেন র কি চান।তাকে ভদ্রভাবে বুঝিয়ে বলতে পারেন এতে আপনার কি অসুবিধা হচ্ছে, আপনি কেমন বোধ করছেন আর কি হলে আপনার ভালো লাগবে। এভাবে কারো সাথে কথা বলাকে বলা হয় Non violent Communication (NVC). এই ভাবে কারো সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে বড় বড় ঘটনাও কোন রকম বিবাদ ছাড়াই মিটানো সম্ভব। এছাড়া আপনি ব্যাপারটি বিশ্বস্ত কারো সাথে শেয়ার করতে পারেন,তাতে আপনার মন হালকা লাগবে। উপরের প্রশ্নের উত্তর দিলে আপনাকে আরও সাহায্য করা হবে। আশা করছি আপনি একটু হলেও উপকৃত হয়েছেন। আপনার পাশে আছে মায়া।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও