প্রিয় গ্রাহক, আপনার মনের অনুভূতি গুলো আমার সাথে শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ। সবাই কম বেশি টেনশনে ভোগেন। তবে অতিরিক্ত টেনশন শরীরের জন্য ক্ষতিকর। এতে ব্লাড প্রেসার বেড়ে যাওয়া ছাড়াও দেহের অনেক ক্ষতি হয়। যা মনের শান্তি নষ্ট করে, ক্ষুধামান্দ্যর জন্ম দেয়, ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়, এমনকি অন্যদের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্ক অসুন্দর করে। তাই প্রত্যেকের যতদূর সম্ভব টেনশনমুক্ত থাকা উচিত। আপনি বলেছেন আপনি মানুষিক টেনশন এ  আছেন। কিন্তু কি নিয়ে টেনশন এ আছেন তা শেয়ার করেন নি। শেয়ার করলে আপনাকে সাহায্য করতে সুবিধা হত।তবে টেনশনমুক্ত থাকার কয়েকটি টিপস:১. খুব টেনশন হলে বুকের ভেতরে গভীর শ্বাস টেনে নিন। রক্তে পর্যাপ্ত অক্সিজেন ঢুকলে মস্তিষ্ক উজ্জীবিত হয়, মাংসপেশি শিথিল হয় এবং মন ঠাণ্ডা হয়।২. গভীর শ্বাস টেনে নেয়ার পাশাপাশি মেডিটেশন করুন। মস্তিষ্কে প্রায় ঘুমের সমপর্যায়ের অবস্থা তৈরি হবে। শূন্যে মনোনিবেশ করলে চাপ কমে যায়। ৩. নিজের ব্যক্তিগত কিছু কথা বিশ্বাসভাজন ব্যক্তির কাছে প্রকাশ করুন, বুঝবেন টেনশন হালকা হচ্ছে। এছাড়া প্রয়োজনবোধে তার সৎ পরামর্শ নিয়ে কাজের জন্য উৎসাহ-উদ্দীপনা ও যৌক্তিকতা খোঁজার চেষ্টা করুন। এতে দুশ্চিন্তার নিরসন হতে পারে।৪.আপনি হয়তো কখনোই ডায়রি লেখেননি। তবুও এ সময়টায়  নোট প্যাড বা ডায়রিতে কিছু লেখার চেষ্টা করুন। যে বিষয়টি আপনাকে কষ্ট দিচ্ছে, মানসিক চাপের কারণ হচ্ছে সেটি ডায়রিতে লিখুন। পাশাপাশি আপনি কী চান বা কী করলে আপনার ভালো লাগত সেই বিষয়টিও লিখুন। আশা করি এই বিষয় গুলো চর্চা করতে পারলে অনেকটাই চিন্তা থেকে মুক্ত থাকতে পারবেন। আর কোন প্রশ্ন থাকলে মায়াকে জানাবেন। আপনার প্রয়োজনে রয়েছে পাশে সব সময় মায়া।           

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও