আমার বয়স ২২,পুরুষ, আমার কখনও কখনো ছোটখাটো বিষয়ে অতিরিক্ত রাগ উঠে,কখনো রাগ এর জন্য নিজের উপর কন্ট্রোল থাকে না। রাগ নেমে গেলে,নিজেই অই পরিস্থিতি বেটার ওয়ে তে হ্যান্ডেল কিভাবে করতে পারতাম এটা খেয়াল আসে।কিন্তু একই পরিস্থিতি তে আবার পড়লে,আমি আবার একই ভাবে রিএক্ট করি। আমি আবার প্রায়শই বিষন্নতার ভুগি,মন খারাপও থাকে। বিঃদ্রঃ আমার রাত এ ঘুম কম হয়,দিনে ঘুমাই,বন্ধু সংখ্যা কম।  পার্সোনাল রিলেশন মেইনটেইন করতে পারি না। বিশেষ ব্যাক্তিবিশেষে,খুব খুতখুতে সভাব প্রকাশ পায়।নিজের অজান্তেই তার যে কোন ভুল এই রাগ উঠে।বিশেষত, যখন আমার উপর অধিকার দেখাতে চায়। আমি কি কোন মানষিক রোগে ভুগছি?আমার সমস্যা র সমাধান কি?

গ্রাহক,আপনার মনের কথা শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ। আপনি নিজের প্রতি সচেতন যা অনেক ইতিবাচক মনোভাব। আপনার এই সচেতনতা আপনাকে সাহায্য করবে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে।আপনি একাধিক ইস্যু শেয়ার করেছেন, যেমনঃ কাছের মানুষের সাথে সম্পর্ক রক্ষা করা নিয়ে, ঘুম কম হওয়া, রাগ বিষন্নতা অনুভব করা এবং ব্যক্তিবিশেষ খুতখুত স্বভাব প্রকাশ পাওয়া।আপনার এই উপসর্গ থেকে আমার মনে হচ্ছে আপনার ব্যক্তিত্ব হয়তো নানা কারণে অসামঞ্জস্য প্যাটার্নে অভ্যস্ত হয়ে গেছে যার ফলে আপনি এরকম আচরণ করছেন প্রতিবার। আপনি সচেতন হলেও নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না। এজন্য একজন কাউন্সেলরের সাথে পরামর্শ করা জরুরি। যিনি আপনাকে সহযোগিতা করবে স্বাস্থ্যকর ব্যক্তিত্ব গড়ে তোলতে এবং কি কারণে এমন হচ্ছে তা জানাতে। এরজন্য প্রয়োজন নিয়মিত সেশনে যাওয়া এবং যে পরামর্শ দেওয়া হয় তা মেনে চলা। আপনি প্রয়োজনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এডুকেশনাল ও কাউন্সেলিং সাইকোলজি বিভাগে বা ক্লিনিক্যাল সাইকোলজি বিভাগে যোগাযোগ করতে পারেন অথবা সরকারি যেকোন হাসপাতালের মানসিক বিভাগে যোগাযোগ করতে পারেন।বর্তমানে সাময়িকভাবে আপনাকে রাগ নিয়ন্ত্রণের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। তবে প্রধান কারণ গুলো সমাধান না হলে এই  অনুভূতি নেতিবাচক উপায়ে নিয়ন্ত্রণ হতে পারে।রাগ একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। আনন্দ,দুঃখ,ভুয় এই অনুভূতির মতই রাগ। যেকোন কারণে যেকোন সময় রাগ অনুভূত হতে পারে।  খেয়াল রাখতে হবে এর ফলে কোন নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে কিনা ব্যক্তিগত,পারিবারিক,সামাজিক,পেশাগত জীবনের উপর। যেসব কারণে রাগ হয় তা হচ্ছে- প্রত্যাশা পূরণ না হলে/মনের কথা প্রকাশ করতে না পারলে/ মানসিক চাপে থাকলে/ অন্যকিছু নিয়ে চিন্তিত থাকলে ইত্যাদি। রাগ নিয়ন্ত্রণের জন্য বেশ কিছু কৌশল অনুসরণ করা যেতে পারে ,যেমনঃ --মানসিকভাবে স্থির হওয়া/ --গভীর শ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়া এর ফলে নেতিবাচক চিন্তা বাঁধা পায় এবং মনোযোগ পরিবর্তন হয়ে রাগ নিয়ন্ত্রণ করে/ --স্থান পরিবর্তন করা এতে নিজেকে সময় দেওয়া যায় ইতিবাচক চিন্তা জন্য এবং নেতিবাচক কোন ঘটনা না ঘটনার জন্য/--এক গ্লাস পানি পান করা এতে নেতিবাচক চিন্তায় বিঘ্ন ঘটে/ --ইতিবাচক চিন্তা করা/ নিজের আচরণের দায়িত্ব নিজে নেওয়া/ --নিজের অবস্থা বুঝা সেই সাথে তা অন্যের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে মনের ভাব প্রকাশ করা এবং অন্যের অবস্থা বুঝতে চেষ্টা করা/-- মেডিটেশন করা এর ফলে চিন্তা,অনুভূতি এবং আচরণ এর নিয়ন্ত্রণ করা যায়। নিয়মিত অনুশীলনের মাধ্যমে রাগ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। আশা করি আপনাকে সহযোগিতা করতে পেরেছি, ধন্যবাদ। 

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও