প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। গরম পানি মুখে প্রদাহ জনিত ব্যথায় বেশ উপকারি। তাছাড়া ব্যাক্টেরিয়া রোধে গরম পানি এবং লবণ বা সোডা ভালো কাজ করে। তাই মুখে ঘা হলে গরম পানি নিয়ে কুলিকুচি করলে উপকার পাওয়া যায়।”- কখনও কখনও ভিটামিন সি’র অভাবেও জিব্বা তে ঘা হতে পারে। তাই  প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি যুক্ত ফলমূল খেতে হবে।- নারিকেলের দুধ দিয়ে দিনে দু’তিনবার কুলিকুচি করলেও মুখ জীবাণুমুক্ত থাকবে।- মুখে ঘা হলে বা আলসার হলে চুইংগাম বা চুষে খাওয়ার চকলেট এড়িয়ে চলতে হবে।- ঘা’য়ের উপর গ্লিসারিন দিলে উপকার পাওয়া যায়।- মুখে ঘা হলে চা, কফি ইত্যাদি পানীয় পরিহার করতে হবে।- টক দই খেলে উপকার পাওয়া যাবে।- মুখে ঘা হলে কাঁচাপেঁয়াজ খেলে উপকার পাওয়া যায়। কারণ কাঁচা পেঁয়াজে আছে প্রচুর সালফার যা ঘা প্রতিরোধে সাহায্য করে।- মুখে ঘা হলে শক্ত, গরম, অতিরিক্ত ঝাল এবং এসিডিক খাবার এড়িয়ে চলতে হবে।- এ ধরনের ক্ষত হলে নরম ব্রিসেলসের ব্রাশ দিয়ে দাঁত মাজার অভ্যাস করতে হবে।এই ঘরোয়া পন্থাগুলো অনুসরণ করলে ঘায়ের ব্যথা কিছুটা কমবে। তাছাড়া অ্যান্টি-ব্যাক্টেরিয়াল মাউথ ওয়াস ও নিকোনাজল-জাতীয় ওষুধ  লাগাতে পারেন।তবে বেশি সমস্যা হলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও