প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।যক্ষ্মা বা যক্ষা (Tuberculosis বা টিবি) একটি সংক্রামক রোগ। মাইকোব্যাক্টেরিয়াম টিউবারকিউলোসিস (Mycobacterium tuberculosis) নামক একটি জীবাণু এই রোগের জন্য দায়ী।বাতাসের মাধ্যমে যক্ষা রোগের জীবাণু ছড়াতে পারে। এ রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি বা কাশির মাধ্যমে রোগের জীবাণু বাতাসে মিশে যক্ষা রোগের সংক্রমণ ঘটায়। যক্ষ্মা রোগীর প্লেট, গ্লাস এমনকি বিছানা আলাদা করে দেওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই। এটি যেহেতু হাঁচি বা কাশির মাধ্যমে ছড়ায়, তাই যার এ রোগ আছে তাকে কিছু ব্যপারে সতর্ক হতে হবে। যেমন- হাঁচি বা কাশির সময় মুখে রুমাল দেওয়া, হাত দিয়ে মুখ ঢাকা অথবা একদিকে সরে কাশি দিতে হবে। যেখানে সেখানে থুতু বা কফ ফেলা যাবে না। আক্রান্ত ব্যক্তির মুখের কাছাকাছি গিয়ে কথা বললে এ রোগের জীবাণু ছড়াতে পারে।এই ব্যাপারগুলো সাধারণত চিকিৎসা শুরুর প্রথম চার সপ্তাহেই প্রয়োজন হয়। এরপর রোগী যদি পূর্ণ মাত্রায় চিকিৎসা নেয় তাহলে আর কোনো সমস্যা হওয়ার কথা নয়। চিকিৎসা শুরুর চার সপ্তাহের মধ্যেই সে সম্পূর্ণ জীবাণুমুক্ত হয়ে যাবে। এটি যেহেতু গ্লাস, প্লেট বা তোয়ালে দিয়ে ছড়ায় না তাই এ ধরনের রোগীকে আলাদা ঘড়ে রাখার কোন যুক্তি নেই এবং কোনভাবেই উচিত নয়।যাদের যক্ষায় আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা বেশি রয়েছেঃঅপরিষ্কার পরিছন্ন থাকা ও নিজের জীবনে পরিচ্ছন্নতা মেনে না চলা অপুষ্টিরোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যাদের কম।বয়স্ক ব্যক্তিযক্ষায় সংক্রমিত ব্যক্তির ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তি।যারা দীর্ঘদিন ধরে মাদক সেবন করছেন।আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন,রয়েছে পাশে সবসময়,মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও