প্রিয় গ্রাহক,ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন বা প্রসাব ইনফেকশন হচ্ছে প্রসাবের সময় ব্যথা বা জালাপোড়া সৃষ্টির একটি বড় কারণ। পুরুষের ক্ষেত্রে প্রোস্টেট গ্রন্থির বৃদ্ধি জনিত সমস্যার কারণেও এটি হতে পারে। এ ছাড়া কিডনি জটিলতা, ভ্যাজাইনাল ইনফেকশন, ডিহাইড্রেশন ইত্যাদির কারণেও  প্রস্রাবে ব্যথা বা জ্বালাপোড়ার সমস্যা হতে পারে। এক্ষেত্রে প্রসাবের জ্বালাপোড়ার সাথে আরো কিছু লক্ষণ থাকতে পারে যেমন - প্রস্রাব গাঢ় হলুদ বা লালচে বর্ণ ধারন করা। প্রস্রাবে বাজে গন্ধের সৃষ্টি হয়। প্রস্রাবের বেগ হয় কিন্তু পরিমাণে খুব কম হয়। প্রস্রাব করার সময় জ্বালাপোড়া বা ব্যথা হয়। তলপেটে বা পিঠে প্রচন্ড ব্যথা হয়। সারাক্ষণ জ্বর জ্বর ভাব অথবা কাঁপুনি দিয়ে জ্বর আসে। বমি ভাব বা বমি হয়  প্রস্রাবের জালাপোড়া প্রতিরোধে কী কী করবেন। পানি পানের পরিমাণ বাড়ান- প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া কমাতে অবশ্যই পানি পানের পরিমাণ বাড়াতে হবে। পানি শরীর থেকে দূষিত ব্যাকটেরিয়াগুলো বের করে দেবে। শরবত, ডাবের পানি, পানিজাতীয় ফল এগুলো প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া কমাতে সাহায্য করবে। তরল জাতীয় খাদ্য খান- তরল জাতীয় খাবার, ইসপগুলের ভুসি-মিছরির শরবত, আখের গুঁড়, ফলের ফ্রেস জুস, ডাবের পানি বা লেবুর শরবত পান করতে হবে। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার খান- প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া কমাতে ভিটামিন-সি জাতীয় খাবার খেতে হবে। কেননা, ভিটামিন-সি ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে সহায়তা করে।  গরম স্যাক দিন- গরম স্যাক দিলে ব্লাডারের চাপ কমবে। সে সাথে ব্যথাও কমবে। কাপড় গরম করে পেটে স্যাক দিন।  এতেও যদি প্রসাবে জ্বালাপোড়া না কমে সেক্ষেত্রে অবশ্যই একজন অভিজ্ঞ ইউরোলজি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। গ্রাহক,অকাল বীর্যপাত বা দ্রুতস্খলন হলো যৌনসঙ্গমকালে পুরুষের দ্রুত বীর্যপাত যাকে ইংরেজিতে বলা হয় প্রিম্যাচিওর ইজ্যাকিউলেইশন। এটি একটি সাধারণ যৌনগত সমস্যা। কিছু lifestyle পরিবর্তনের মাধ্যমে আপনি উপকৃত হতে পারেন: 1. পুষ্টিকর খাবার খাওয়া। 2. যৌন মিলনের সময় মাইন্ড কে একটু distract করুন। 3. anxiety বা depression এ ভুগলেও এমন টা হতে পারে।সুতরাং দুশ্চিন্তা মুক্তি থাকুন। 4.হস্তমৈথুনের অভ্যাস থাকলে তা কমিয়ে ফেলা। 5.ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা। 6.নিয়মিত কিছু এক্সারসাইজ করা। 7.রাতে পর্যাপ্ত ঘুমানো। গ্রাহক,সেক্স এর সময় nervousness এর কারণে বীর্যপাত আগে আগে হয়ে যেতে পারে।তাই এই বিষয়ে আপনার পার্টনার এর সাথে খোলাখুলি কথা বলে নিবেন।সেক্স করার সময় যদি মানসিক ভাবে আপনারা একে অপরের কাছাকাছি আসতে পারেন তাহলে এই সমস্যা গুলো আর হবেনা।সেক্স এর সময় কনডম ব্যবহার করলেও এই সমস্যাটি হবেনা।এতেও কাজ না হলে শারীরিক কোন বিষয় সম্পর্কিত আছে কিনা তা দেখা প্রয়োজন। হরমোনের সমস্যা, থাইরয়েড গ্রন্থির সমস্যা, প্রোস্টেট অথবা মূত্রনালীর ইনফেকশন ইত্যাদি কারণেও এরকম হতে পারে, তাই সেক্ষেত্রে আপনি একজন ডাক্তার দেখিয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে নিতে হবে। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়াকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও