প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। জি গ্রাহক এতে গরভধারনের সম্ভাবনা থাকে। সহবাসের মানসিক এবং শারীরিক উভয় দিকই আছে। এর শারীরিক দিক হচ্ছে যখন একজন পুরুষ তার উত্থিত লিংগ স্ত্রীর যোনির অভ্যন্তরে প্রবেশ করে তা হচ্ছে সহবাস। এর জন্য উভয়কেই শারীরিকভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে। বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী সহবাস-সম্মতির বয়স ১৮ বছর কেননা এই বয়সের আগে একজন ছেলে ও মেয়ের শরীর সহবাসের ধকল নিতে পারেনা। যদি দুজনের কারও বয়স এর চেয়ে কম হয় তবে এটিকে ধর্ষন বলে গন্য করা হয় এবং এতে করে দুজনকেই জেলে যেতে হতে পারে। যদি আপনি নিশ্চিত থাকেন যে বীর্য যোনিতে গিয়েছে, তাহলে অবশ্যই প্রেগন্যান্ট হবার সম্ভাবনা আছে । অনেক সময় কনডম ছিড়ে গেলে বীর্য যোনিপথের ভিতর চলে যেতে পারে, সেই সব ক্ষেত্রে আপনারা যদি এখন বাচ্চা না চান তাহলে একটা emergency pill খেয়ে নিতে পারেন । আপনি যেকোন সময় খেতে পারেন। খাওয়ার আগে পরের কোন ব্যাপার নেই।ইমারজেন্সি পিল একটি হরমনাল জন্মনিয়ন্ত্রক পদ্ধতি এই পিল দুইধরনের হয়ে থাকে। তবে প্রত্যেকটি অনিরাপদ সহবাসের পর বাচ্চা নিতে না চাইলে যত দ্রুত সম্ভব গ্রহন করা উচিত। দুইধরনের পিলের মধ্যে প্রথমটি অনিরাপদ সহবাসের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে খেতে হয় তবে অধিক কার্যকারিতার জন্য ১২ ঘণ্টার মধ্যে খাওয়া উচিত । আরেক টি পিল খাওয়া হয় অনিরাপদ সহবাসের ৫ দিনের মধ্যে ।  এই ইমারজেন্সি পিল সহবাসের সময় কনডম ছিঁড়ে গেলেও ব্যবহার করা যায়। এই পিল সাধারনত সফল ভাবে গর্ভ নিরোধ করে, তবে মাসিকে অন্য ওষুধের মত এই পিলের কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া আছে যেমন অনিয়মিত মাসিক, সেইসাথে কারো ক্ষেত্রে বমিভাব এবং মাথা ব্যথা দেখা যায় । আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও