প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।বাচ্চার ৬ মাস পুর্ন হবার পর আপনি তাকে বুকের দুধের পাশাপাশি অন্যান্য স্বভাবিক খাওয়া দিতে পারবেন।ব্রেস্ট ফিডিং এর সময় প্রথমে আপনি একটি বসার চেয়ার খুঁজে নেবেন যেখানে বসে আপনি আরামের সাথে এবং গোপনীয়তা রক্ষা করে শিশুকে ব্রেস্ট ফীড করাতে পারবেন। চেষ্টা করবেন সহজ এবং স্বাভাবিক থাকতে। শিশুকে একটি ভাল পজিশনে রাখবেন। তিন রকমের পজিশন আছে—cradle, rugby hold and lying down (কোলে নেয়া, রাগবি ধরা এবং শোয়ানো অবস্থায়)। এগুলো বিবরণ দিয়ে বোঝানো কিছুটা কঠিন কিন্তু ইন্টারনেটে আপনি এই অবস্হানগুলোর ছবি খুঁজে পাবেন। শিশুদের জন্য ফিডিং এর সময় LATCH করতে সক্ষম হতে হবে। Latching বলতে বোঝায় যখন শিশুটি মায়ের স্তনের বৃন্ত এবং বৃন্তের আশেপাশে অংশ (areola) সহ মুখে নিতে পারে। ভালো ল্যাচ না হোলে, শিশু ভালোভাবে খাবে না এবং বিরক্ত হবে, আপনিও বিরক্ত হবেন এবং আপনার নিপল ক্ষতিগ্রস্থ হবে।যাতে পর্যাপ্ত দুধ হয় সেজন্য মায়ের খাদ্য তালিকায় উচ্চ ক্যালোরীযুক্ত খাবার, যেমন— দুধ, পনির ইত্যাদি থাকা উচিত। প্রচুর পানীয়— পানি, ফলের রস,দুধ খেতে হবে। প্রতিবার ব্রেস্ট ফীড করানোর আগে অবশ্যই এক গ্লাস পানি পান করবেন যেন আপনি dehydrated না হয়ে যান। খাবারের মধ্যে— মেথি, কালিজিরা, সাগু, লাউ বিশেষত দুধ বৃদ্ধি করে। ব্রেস্টে গরম সেঁক দিলে দুধ সরবরাহ বৃদ্ধি পাবে। যত বেশী বুকের দুধ বাচ্চাকে খাওয়াবেন তত বেশী দুধ তৈরী হবে। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন,রয়েছে পাশে সবসময়,মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও