প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। তরল দুধের মত গুঁড়ো দুধে সকল পুষ্টিগুণ বিদ্যমান, তবে গুঁড়া দুধের মাঝে কিছু সমস্যা রয়েছে। গুঁড়া দুধে রয়েছে উচ্চ কোলেস্টেরল এবং চিনি। একই সাথে সঠিকভাবে সংরক্ষণের অভাবে এতে সংক্রমিত হতে পারে ব্যাকটেরিয়া। এছাড়াও : গুঁড়ো দুধে থাকে অক্সিডাইজড কোলেস্টেরল গুঁড়ো দুধে থাকে অক্সিডাইজড কোলেস্টেরল। অক্সিডাইজড কোলেস্টেরল হল মোমের মতো পদার্থ যা নালীর দেয়ালে আটকে থাকে। যার ফলে রক্তনালী গুলো ক্ষতিগ্রস্থ হয়। প্রাকৃতিক তরল দুধের মতো উপাদান গুঁড়ো দুধে তৈরি করার জন্য ব্যবহৃত হয় কৃত্রিম উপাদান। যা থেকে তৈরি হতে পারে হৃদযন্ত্রের নানাবিধ রোগ। পুষ্টিগুণ ও স্বাদ বিভিন্ন গবেষণা মতে, তরল দুধের স্থান খুব সহজেই দখল করতে পারে গুঁড়ো দুধ। কারণ এতে রয়েছে একই ধরণের ভিটামিন সমূহ ও মিনারেল সমূহ। একইসাথে গুঁড়ো দুধের দ্বারা খুব সহজেই তৈরি করা যায় যেকোন ধরণের পানীয় ও শেক। তবে স্বাদের ক্ষেত্রে রয়েছে ভিন্নতা। অনেকের কাছে প্রাকৃতিক তরল দুধের সাথে গুঁড়া দুধে স্বাদ অপছন্দনীয়। সহজ কথা এটাই যে গুঁড়ো দুধ কোন দিক দিয়েই তরল দুধের চাইতে বেশি পুষ্টিকর নয়। বরং কিছু কিছু ক্ষেত্রে ক্ষতিকারক, যেমন অক্সিডাইজড কোলেস্টেরলের উপস্থিতি।  সাশ্রয়ী গুঁড়ো দুধ ব্যবহারের অন্যতম লোভনীয় দিক হচ্ছে, এটি খুবই সাশ্রয়ী। তরল প্রাকৃতিক দুধ কিংবা প্যাকেটজাত দুধের তুলনায় গুঁড়ো দুধ কেনা যায় অনেক কম দামে। গবেষকদের মতে, এত কম দামে গুঁড়ো দুধ পাওয়া যাওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে, এটি তৈরিতে নিকৃষ্টমানে পণ্য ব্যবহার করা। ল্যাকটোস ইন্টলারেন্টদের জন্য উপযোগী যারা দুধ ও দুগ্ধ জাতীয় খাদ্য গ্রহণ করতে পারেন না তাদের জন্য রয়েছে ‘লো ল্যাকটোস পাউডারড মিল্ক ফর্মুলা’। ভালোভাবে দ্রবীভূত হয় না যেহেতু অনেক গুঁড়ো দুধ তৈরিতে খুব একটা ভালো ও উন্নত মানের উপাদান ব্যবহৃত হয় না, সেহেতু গুঁড়ো দুধ খুব ভালোভাবে মিশে যায় না। পানি বা অন্য কিছুর সাথে মেশানোর চেষ্টা করা হলেও দলা পাকিয়ে কিছু অংশ থেকে যায়। এমন দুধ খাওয়ার পর পেটের সমস্যা দেখা দিতে পারে। তবে গুরু দুধ যদি খেতেই হয় তাহলে লক্ষ্য রাখুন, দুধটি যেন ভালো ব্র্যান্ড ও ভালো মানের হয়।   ধন্যবাদ

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও