প্রিয় গ্রাহক।প্রশ্ন করার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।আপনার যদি এ রকম এই প্রথমবার হয়ে থাকে তাহলে কারনটা খুজে বের করতে হবে। আপনার মাসিক কি নিয়মিত হয়? যদি হ্যাঁ, তাহলে আপনি যৌন মিলন করেছেন? যদি contraception ছাড়া যৌন মিলন করে থাকেন, তাহলে আপনি গর্ভবতী হতে পারেন এবং আপনিএকটি pregnancy test করান। যদি আপনি প্রেগন্যান্ট না হন, এবং মাসিক ২ সপ্তাহের বেশী বিলম্বিত হয় অথবা যদি আপনার মাসিকের সময় বেশি রক্তপাত হয় /পেটে খুব বেশি ব্যথা হয় তাহলে আপনার একজন স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ এর পরামর্শ নিন। প্রায়ই মানসিক চাপ, জীবনশৈলী পরিবর্তনের , ওজনবৃদ্ধি , অত্যধিক ব্যায়াম এর কারন এ বিলম্ব হতে পারে মাসিক। পিরিয়ড না হওয়ার আরও অনেক কারণ হতে পারে। যেমন যদি আপনার ডিম্বাশয়ে কোন সিস্ট থাকে (পলিসিস্টিকওভারির) , বা জরায়ুতে কোন রোগ, অথবা শরীরে কোন কারনে হরমোনের তারতম্য। থাইরয়েড হরমন কিংবা প্রল্যক্টিন হরমনের পরিমানে পরিবর্তনের জন্যও হতে পারে মাসিক। তাই এই হরমনের পরিমান জেনে নেওয়াটাও জরুরি। কারণ বের করতে হলে আপনার একজন গাইনি ডাক্তারের কাছে গিয়ে শারীরিক পরীক্ষা করাতে হবে। কিন্তু অনেক সময় কোন কারণ ছাড়াই অনেকদিন পিরিয়ড না হতে পারে স্বাভাবিক ভাবেই। সেক্ষেত্রে কিছু করার প্রয়োজন নাই। সেক্ষেত্রেও জন্মনিয়ন্ত্রনে রাখাটা জরুরি। সুধু অপেক্ষা করুন। তবে অবহেলা করবেন না। আশা করি সাহায্য করতে পেরেছি। যেকোনো প্রশ্ন থাকলে অবশ্যই করবেন। ধন্যবাদ। মায়া মেডিক্যাল টীম।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও