প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।গ্রাহক আপনার স্বামী আপনাদের প্রতি দ্বায়িত্ব পালন করছেন না।গ্রাহক বুঝতে পারছি আপনি বিষয়টি নিয়ে কষ্ট পাচ্ছেন।আপনার প্রশ্ন পড়ে অনুভব করতে পারছি যে আপনি আপনাদের সম্পর্কের ব্যপারে খুব সচেতন, যা একটি ইতিবাচক দিক।গ্রাহক আপনি যে তার কাছ থেকে সময় আশা করেন এ বিষয়টি কি মুখে তাকে আপনি বলেছেন?আপনারা পরস্পর খোলামেলা আলোচনা করতে পারে এতে যদি কিছুটা ঝগড়া হয় তাও খুবই স্বাভাবিক।এবং ভালোও।কারণ ঝগড়া হলে রাগ- অভিমানে আমাদের মনের অনেক চাপা কষ্ট বের হয়ে আসে।কিন্তু ঝগড়ার পরিমাণ যেন এমন না হয় যা সম্পর্ক নষ্ট করে ও দীর্ঘস্থায়ী হয় তা লক্ষ করা দরকার।যেকোন বিষয় নিয়ে আপনারা পরস্পর আলোচনা করতে পারেন।আপনার যদি তার কোন বিষয় খারাপ লাগে তবে তাকে তা বুঝিয়ে বলতে পারেন ও তার কথাগুলোও মন দিয়ে শুনতে পারেন।পরস্পরের ইচ্ছে -অনিচ্ছে ও চাওয়া পাওয়াগুলোর খেয়াল রাখতে পারেন। গ্রাহক আলোচনা অনেক সময় অনেক সমস্যার সমাধান দেয়।আপনি যে তার এরকম ব্যবহারে কষ্ট পান তা তাকে বলতে পারেন। গ্রাহক তাকে আপনার বিষয়গুলো "I ল্যাঙ্গুয়েজ"এ বলতে পারেন। আমরা যখন কাউকে বলার সময় blame দিয়ে বলি যে তুমি এটা করলে না কেন, তোমার কি করা উচিত ছিল না? বা তুমি এমন টা কেন করেছো, তুমি আমাকে সময় দাও না এভাবে বললে তখন স্বাভাবিকভাবেই আমরা যতই নরম গলায় আস্তে এই কথাগুলো বলি না কেন অপর পক্ষের মানুষটি এটা সহজে নিতে পারে না। তখনই বেশি ঝগড়া গুলো হয়ে থাকে। তাই চেষ্টা করতে পারেন নিজের অনুভূতিকে ফোকাস করে বলতে। এতে যেমন সেও কষ্ট পাবে না তেমনি আপনার জীবনে সে যে অনেক মূল্যবান সেটা সে নিজেও অনুভব করতে পারবে। সেই সাথে তার আপনার প্রতি চাওয়া-পাওয়া গুলো ও জেনে নিতে পারেন। ভুল বোঝাবুঝি হলে আলোচনার মাধ্যমে তা ক্লিয়ার করার চেষ্টা করতে পারেন। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও