প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।গ্রাহক,কবে ওষুধ খেয়েছেন?পরিবারের সকল সদস্য খেয়েছেন?কৃমি সংক্রমণ প্রায় সব বয়সের মানুষের মধ্যে হতে পারে। এটি শিশু, বয়স্ক সহ বিভিন বয়সী মানুষের হতে পারে। এর কারণে শিশুরা বিশেষ করে অপুষ্টি ও রক্তশূন্যতায় ভোগে।অনেক কারনের মধ্যে যেগুলো উল্লেখযোগ্য তাহলো নোংরা পরিবেশ, অনিরাপদ পানি পান বা রান্নায় ব্যবহার, অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস, খালি পায়ে হাঁটা যা কৃমি সংক্রমণের জন্য দায়ী। এক্ষেত্রে যে বিষয়টি জরুরি তাহলো ডাক্তারের পরামর্শে ওষুধ নিয়ম মেনে খাওয়া আর সহজ কিছু উপায় মেনে চলা। প্রতি ৪-৬ মাস পর পর পরিবারের সবাইকে বয়স অনুযায়ী নির্দিষ্ট ডোজে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে কৃমির ওষুধ খেতে হবে । দুই বছরের নিচে কোনো শিশুকে খাওয়াতে হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে ডোজ নির্ধারন করে প্রয়োজন মত খাওয়াতে হবে। কৃমি সংক্রমণের উপসর্গ হতে পারে পায়ুপথে চুলকানী বা কৃমি মলের সাথে বের হওয়া। এছাড়াও ওজন না বাড়া, পেট ফাঁপা, পেট কামড়ানো, আমাশয়, অপুষ্টি, রক্তশূন্যতা ইত্যাদি উপসর্গ বা লক্ষন হতে পারে। অনেক সময় শিশুরা পায়ুপথ চুলকালে হাত ভালোভাবে না ধুয়ে তা মুখে দেয় বা খাবার গ্রহন করে সেক্ষেত্রে সংক্রমণ ছড়ায়। তাই খাবার আগে ও বাথরুম ব্যবহারের পরে সঠিকভাবে হাথ ধুতে হবে। পানি অবশ্যই ফুটিয়ে বা বিশুদ্ধ করে পান করবেন। শাকসবজি ও মাংস খাওয়ার আগে ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে। খাবার প্রস্তুত ও পরিবেশনের আগে ভালো করে হাত ধুতে হবে।বাইরের খোলা অপরিচ্ছন্ন খাবার না খাওয়াই ভালো। খালি পায়ে না থেকে স্যান্ডেল বা জুতা ব্যবহার করুন। উপসর্গ থাকলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ গ্রহন করতে হবে।আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়াকে জানাবেন,রয়েছে পাশে সবসময়,মায়া ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও