প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।মাইগ্রেন অতি পরিচিত একটি রোগ৷ মাথা-ব্যথা বললে সবার আগে মাইগ্রেন ও সাইনোসাইটিসের নাম মনে পড়ে সবার৷ বয়ঃসন্ধির পর থেকে মাঝবয়স পর্যন্ত যে কেউ মাইগ্রেনে আক্রান্ত হতে পারেন৷ পুরুষ-স্ত্রীতে কোনও ভেদাভেদ নেই, তবে মহিলাদের ক্ষেত্রে মাইগ্রেনের প্রকোপ তুলনামূলক বেশি৷মাইগ্রেনের ব্যথা সাধারণত মাথার একপাশে হয়, তবে একসঙ্গে দু পাশেও হতে পারে৷ ক্ষেত্র বিশেষে পুরো মাথা জুড়ে কিংবা কপালের এক অংশ বা একটি অক্ষিপটের গভীরে অনুভূত হতে পারে৷ ব্যথাটি পর্যায়ক্রমিক (Episodic), অর্থাৎ কয়েক দিন বা কয়েক মাসের ব্যবধানে হতে পারে, এবং সাধারণত কয়েক ঘণ্টা স্থায়ী হয়৷ কেউ কেউ ব্যথা শুরু হওয়ার পূর্ব মুহূর্তে কিছু উপসর্গের অভিজ্ঞতা (Premonitory symptoms) পেতে পারেন: যেমন- আচমকা চোখের সামনে রঙিন ঝলক, দৃষ্টি বিভ্রান্তি, কথা বলতে অসুবিধে কিংবা শরীরের একপাশে সাময়িক অবশ বা অনুভূতি শূন্য বোধ করা৷বেশিরভাগ রোগী মাথার গভীরে এক ধরনের দপদপে ব্যথার অস্তিত্ব অনুভব করেন৷ কপালের মাঝখান থেকে আড়াআড়ি কানের পেছন পর্যন্ত ব্যথাটা ছড়িয়ে পড়তে পারে৷ কিছু কিছু ক্ষেত্রে কপালে না হয়ে শুধু কানের ঠিক ওপরের অংশে ব্যথা হতে পারে৷ব্যথার সঙ্গে বমি বমি ভাব এবং দৃষ্টি বিভ্রান্তি দেখা দেয়৷ প্রকোপের সময় সাধারণত রোগীকে ফ্যাকাসে দেখায়, ব্যথা চরম হলে বমি হতে পারে এবং রোগী ক্লান্তি অনুভব করেন৷ উজ্জ্বল আলো সহ্য করতে পারেন না বলে কেউ কেউ অন্ধকার ঘরেও শুয়ে থাকতে বাধ্য হন৷মাইগ্রেনের মাথা-ব্যথার কারণ পুরোপুরি জানা যায়নি৷ তবে মস্তিষ্কে রক্ত সরবরাহে সাময়িক ঘাটতির জন্যে মাইগ্রেনের ব্যথা হয়৷ মাইগ্রেনে আক্রান্ত রোগীদের আত্মীয়দের মধ্যেও একই রোগ লক্ষ্য করা যায় বলে এটা নিশ্চিত যে রোগটির বিকাশের ক্ষেত্রে জেনেটিক (বংশগত) প্রবণতা রয়েছে, অর্থাৎ আপনার বাবা-মার থাকলে আপনারও হতে পারে৷খাদ্যাভাসের বৈচিত্র্যের কারণে মাইগ্রেনের প্রকোপ বেড়ে যেতে পারে: যেমন চকোলেট, পনির বা মদ্যপান (অ্যালকোহল) মাইগ্রেনের প্রকোপ বাড়িয়ে দেয়৷ মহিলাদের ক্ষেত্রে জন্ম নিয়ন্ত্রণ বড়িও একই ভূমিকা রাখতে পারে৷ এছাড়া অতিরিক্ত কাজের চাপ, বিষণ্ণতা এবং উদ্বেগের সঙ্গেও মাইগ্রেনের নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে৷খাদ্যাভাসে পরিবর্তন আনতে পারেন৷ চকোলেট, পনির,মদ্যপান(অ্যালকোহল) এড়িয়ে চলা ভালো৷ জন্ম নিয়ন্ত্রণ বড়ি যারা সেবন করেন, মাইগ্রেনের ব্যথার প্রকোপ বেড়ে গেলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে বড়ি সেবন বন্ধ করে দিতে হবে৷ প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে৷হাসি-খুশি থাকার চেষ্টা করতে হবে, জীবনের আনন্দকে উপভোগ করতে হবে৷অতিরিক্ত টেনশন করা যাবেনা। রাত জাগা যাবেনে৷আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন,রয়েছে পাশে সবসময়,মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও