আপা, বিয়ে হয়েছে ২ বছর। শাশুড়ি আর স্বামীর সাথে থাকি। শাশুড়ির মানসিক অত্যাচার এ জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। তার মন রক্ষা করতে সব ধরনের চেষ্টা করি। বাড়ির কাজ, শাশুড়ির কাজ, বাজার যা লাগে। মাঝে মাঝে মনে হয় খোঁচা মেরে কথা , ছোট করে এক ধরনের তৃপ্তি লাভ করে। আর প্রচণ্ড বদরাগী আর ভয়ংকর। স্বামীর আমার প্রতি কেয়ারিং ভাব বা কোথাও ঘুরতে যাওয়া সহ্য করতে পারে না বুঝতে পারি। মানুষ হিসেবে বলব আত্মীয় বন্ধু বান্ধব এমনকি বুয়া কেউই পছন্দ করে না। আমি সব সহ্য করি চুপ করে, কারন টু আওয়াজ করলে আমাকে আস্ত রাখবে না। স্বামীকে সমস্যাগুলা বললে বুঝে হয়ত, কিন্তু এর চেয়ে আর কিছু না।  মা এর সাথে সম্পর্ক খুবই ভাল আর স্বাভাবিক আর ভয় ও পায় অনেক।এই  সমস্যাগুলা বলেও লাভ হয় না। এগুলা নিয়েই দাম্পত্য জীবনে সুখী না। মনে হয় এই সংসার ছেড়ে চলে যাই দূরে কোথাও। এগুলা একধরন এর মানসিক চাপ ফেলছে।

প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।আপনি খুব সুন্দর করে গুছিয়ে  আপনার কথাগুলো লিখেছেন।আপনার কথা শুনে মনে হল,আপনার স্বামী আপনাকে সাপোর্ট করে।এইসব ক্ষেত্রে স্বামীর সাপোর্ট খুবই সাহস যোগায় নিজেকে সামলে নেবার জন্য।আপনি আপনার স্বামীর সাথে সব কিছু শেয়ার করেন,এটা খুব ভালো কথা।এতে আপনার মনের ভার কিছুটা হাল্কা হবে।আসলে আপনার শ্বাশুড়ি এই ধরণের আচরণ কেন করছে,এর পিছনে হয়ত কোন কারণ আছে।আর তাছাড়া তিনি ভালো কিছু করলে আপনি তার প্রশংসা করুন,তখন আপনার প্রতি তার মনোভাব ধীরেধীরে পরিবর্তন হতে পারে।আপনি নিজের সুবিধা-অসুবিধা তাকে সুন্দরভাবে বুঝিয়ে বলুন,যেমন,বাজার করতে হবে কিন্তু আপনার শরীর ভালো লাগছে না,সেক্ষেত্রে তা প্রকাশ করুন।তাহলে উনিও বুঝতে পারবে আপনার সুবিধা - অসুবিধার কথা।আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন,রয়েছে পাশে সবসময়,মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও