প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।আমাদের শারীরিক গঠনের অনেক বিষয় আমরা চাইলেও নিয়ন্ত্রন করতে পারিনা । শারীরিক দুর্বলতাও বিভিন্ন কারণে হতে পারে তবে এই বিষয়টি নিয়ে কেউ হাসি ঠাট্টা করলে তা কস্টের । আপনার যায়গায় অন্য  কেউ থাকলে তার কাছেও কস্ট লাগতো । আপনার মধ্যে এনিয়ে অনেক কস্ট ও ক্ষোভ জমে আছে তা বুঝতে পারছি । বিষয়গুলো কি আমাদের সাথে শেয়ার করা যায় ? আমাদের সমাজে বারবার এটি তুলে ধরা হয় যে আমাদের কেমন দেখতে হওয়া উচিৎ । বাস্তবে এমন কোন নিয়ম নেই । নিখুঁত কেউই নয়, হয়তো অন্যদের চোখে আপনার শরীর আলাদা মনে হয় । কিন্ত আপনিও একজন সুন্দর মানুষ, একজন মূল্যবান মানুষ ।  আপনার কস্টের কথাগুলো আমাদের সাথে শেয়ার করলে মানসিকভাবে হাল্কা অনুভব করতে পারবেন আশা করা যায় । আপনার কাছে যখন কারো হাসি ঠাট্টা খারাপ লাগবে তখন সেটি তাদেরকে বলতে পারেন । আপনি তাদের কাছ থেকে কি ধরনের আচরণ প্রত্যাশা করেন সেটি বুঝিয়ে বলতে পারেন । এমন মনে হওয়া খুব স্বাভাবিক হয়তো শরীর ঠিক হয়ে গেলেই সব ঠিক হয়ে যাবে তবে মূলত বিষয়টি তা নয় । আপনি যদি আপনার নিজের শরীরকে যেমন আছে তেমন মেনে নিতে পারেন তাহলেই কেবন আপনার ভালো লাগা কাজ করতে পারে । আশেপাশে দেখুন  আমরা কেউ কি নিখুঁত? নিজের কাছেও কিন্ত নিজেকে খারাপ লাগতে পারে, ভেতরের একটা কন্ঠ হয়তো আপনাকে বলতে পারে যে আপনি সুন্দর নন । সেই কন্ঠটিকে বুঝিয়ে বলুন যে আমরা সবাই আমাদের মতো করে সুন্দর । অন্যদের বিরুপ আচরণ আপনার মানসিকতার উপর ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারে । এই বিষয়গুলো নিয়ে আপনি একজন কাউন্সেলিং মনোবিজ্ঞানীর সাথে কথা বলতে পারেন । এতে করে আপনার মনের কস্টগুলো কমে যেতে পারে । গ্রাহক, এবার আপনার শারীরিক বিষয়ে কিছু পরামর্শ দেওয়ার চেষ্টা করছি। আপনার দেওয়া তথ্য মতে আপনার বিএমআই স্বাভাবিক থেকে কম আছে, তাই কিছু ওজন বাড়াতে হবে।শরীরের লম্বার সঙ্গে ওজনের একটা অনুপাত থাকে,এই অনুপাতকে বডি মাস ইনডেক্স বলে BMI . যেমন ধরুন আপনার উচ্চতা আর আপনার ওজনে যদি আপনার BMI 18-24.9 হয় তালে এটা নরমাল। 18 এর কম হলে, আপনাকে ওজন বাড়াতে হবে।ওজন বাড়ানোর জন্য আপনি কতগুলো জিনিস করতে পারেন I১. যেমন,আপনি একবারে বেশি না খেয়ে অল্প পরিমানে বারে বারে খেতে পারেন I২. ভাত, আলু এবং রুটি বেশি খেতে পারেন I৩. প্রতিদিন ডিম এবং দুধ খেতে হবে I৪. প্রচুর পরিমানে পানি খেতে হবে I৫. Protein জাতীয় খাবার শাকসব্জি, মুরগি এবং মাস খেতে হবে I৬. সুস্থ থাকার জন্য প্রতিদিন নিয়মিত exercise করতে হবে I৭. রাতে ৮ থেকে ৯ ঘন্টা ঘুমানো উচিত Iওজন বাড়ানোর জন্য খাওয়া দাওয়ার বিশেষজ্ঞর পরামর্শ নিতে পারেন এবং তার কাছ থেকে আপনি খাদ্য তালিকা নিতে পারেন Iআশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন,রয়েছে পাশে সবসময়,মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও