প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।১) পরিমিত পরিমাণে ঘুম ওবিশ্রামআমরা সকলেই জানি ঘুমের সময়আমাদের দেহ গঠনের টিস্যুগুলো কাজকরে। এরফলে আমাদের উচ্চতা ওশারীরিক গঠন বৃদ্ধি পায়। হিউম্যানগ্রোথ হরমোন প্রাকৃতিক উপায়েআমাদের দেহে উৎপন্ন হতে থাকে যখনআমরা পরিমিত পরিমাণে ঘুমাতেপারি এবং বিশ্রাম নিতে পারি।তাই বয়স অনুযায়ী ৮-১১ ঘণ্টা ঘুম ওবিশ্রাম দেয়ার চেষ্টা করুন নিজেকে।প্রাকৃতিক উপায়ে এটিই সবচাইতেভালো পদ্ধতি উচ্চতা বৃদ্ধি করার।২) নিয়মিত ব্যায়াম এবংখেলাধুলাছোটবেলা থেকেই যারা অনেকবেশি খেলাধুলা করে থাকে এবংসুঠাম দেহের অধিকারী হয় তাদেরউচ্চতা অন্যান্যদের তুলনায় একটু বেশিদ্রুত বৃদ্ধি পেয়ে থাকে। এছাড়াওসাতার, আরোবিক্স, টেনিস, ক্রিকেট,ফুটবল, বাস্কেটবলের মতো খেলারমাধ্যমে ও হাঙ্গিং, স্ট্রেচিং ধরণেরব্যায়াম দেহের উচ্চতা বৃদ্ধিতে বেশসহায়ক। কারণ যারা অনেক বেশিখেলাধুলা এবং ব্যায়াম করেন ও যারাসুঠাম দেহের অধিকারী তারাস্বভাবতই একটু বেশি এবং পুষ্টিকরখাবার খান। এতে করে দুটো ব্যাপারইকাজ করে উচ্চতা বৃদ্ধিতে।৩) যোগব্যায়ামযোগব্যায়ামের অভ্যাস উচ্চতাবৃদ্ধিতে বেশ ভালো ভূমিকা পালনকরে থাকে। যোগব্যায়াম আমাদেরদেহে ঘুমের সময় যে গ্রোথ হরমোনেরনিঃসরণ ঘটায় তা উৎপন্ন করে এবংআমাদের উচ্চতা বৃদ্ধিতে সহায়তাকরে। ট্রাইঅ্যাঙ্গেল পোজ, কোবরাপোজ, মাউন্টেইন পোজ, প্লিজেন্টপোজ, ট্রি পোজ ইত্যাদি ধরণের উচ্চতাবৃদ্ধিতে বিশেষ ভাবে সহায়ক।৪) দেহের সঠিক অঙ্গবিন্যাসহাঁটাচলা করা এবং বসার সময়সঠিকভাবে ঘাড় ও মেরুদণ্ড সোজারেখে হাঁটা ও বসা এবং শোয়ার সময়ঘাড় বেশি বাঁকা না করে মেরুদণ্ডেরপ্রায় সমান্তরালে রাখার মতোঅঙ্গবিন্যাসও উচ্চতা বৃদ্ধিতে সহায়তাকরে থাকে।৫) সুষম খাদ্যাভ্যাসউচ্চতা বৃদ্ধিতে সব চাইতে সহায়ক হচ্ছেসুষম খাবার খাওয়ার অভ্যাস। পুষ্টিকরএবং স্বাস্থ্যকর খাবার দেহের হাড় ওকোষের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।ভিটামিন ডি আমাদের দেহে গ্রোথহরমোন উৎপন্ন করে, ক্যালসিয়াম হাড়েরগঠন এবং হাড় মজবুত করে,ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস এবংকার্বোহাইড্রেট কোষ গঠন ও বৃদ্ধিতেসহায়তা করে। এছাড়াও খাবার হজমএবং পুরো দেহে পুষ্টি পৌঁছানোরব্যাপারটিও উচ্চতা বৃদ্ধিতে সহায়ক।তাই সুষম খাবার নিয়মিত খাবারচেষ্টা করুন।৬) উচ্চতা বৃদ্ধিতে বাঁধাপ্রদান করে এমন কাজ করাথেকে বিরত থাকুনজাংক ফুড, স্যাচুরেটেড ফ্যাট,কার্বোনেটেড ড্রিংকস, অতিরিক্তচিনি ইত্যাদি ধরণের খাবার, ধূমপান ওমদ্যপান করার অভ্যাস, রাতে নাঘুমানো ইত্যাদি আমাদের দেহেগ্রোথ হরমোন তৈরিতে বাঁধা প্রদানকরে থাকে। বিশেষ করে ধূমপান এবংমদ্যপানের অভ্যাস যদি বাবা-মায়েরথেকে থাকে তবে তার প্রভাবসন্তানের উপরেও পড়ে। তাই এইসকলকাজ থেকে বিরত থাকুন।আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন,রয়েছে পাশে সবসময়,মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও