আসসালামু-আলাইকুম! খুব বিপদে পড়ে মেসেজ করেছি। আশা করি একটা সমাধান দিবেন। আমি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩য় বর্ষে পড়ছি। সম্প্রতি আমার কাজিনের সাথে আমার রেজিস্ট্রি হয়েছে। সে এবং তার পুরো ফ্যামিলি আমেরিকাতে সেটেল, জানুয়ারীতে দেশে আসলে অনুষ্ঠান হবে। এই বিয়ের সম্বন্ধে শুরুতে আমরা কেউ রাজি না থাকলেও পরে আমার ফ্যামিলি রাজি হয়। আমি ব্যাপারটা পুরোটাই ফ্যামিলির উপর ছেড়ে দিই। আমার কাজিন বি.এ পড়া কমপ্লিট না করেই আমেরিকা যায় এবং আর পড়াশোনা করেনি। সমস্যা হয়েছে যে আমি কিছুতেই এটা মন থেকে মেনে নিতে পারছিনা। শিক্ষাগত পার্থক্যর কারণে, আবার কাউকে বলতেও পারছিনা। খুবই মানসিক অশান্তির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। মোট কথা স্বাভাবিক জীবন চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। আত্নীয়দের মাঝে বিয়ের সম্পর্ক তাই আরও মানসিক ঝামেলায় আছি যে কাউকে শেয়ারও করতে পারছিনা। কারণ আমার এই কথা তারা জানলে খুব কষ্ট পাবে। আমার মা অবশ্য জানে এবং সেও আমার এই কথা শুনে হতাশ হয়ে পড়েছে। আমি জানি বিয়ে ধুলো মাটির খেলা না। অনেক চেষ্টা করছি মানতে কিন্তু কিছুতেই পারছিনা। রেজিস্ট্রি হয়েছে গত মাসের ২২ তারিখে, মোবাইলে। এখন আমি কি করতে পারি  দয়া করে বলবেন। আমি পড়াশোনা করতে ভালোবাসি, বই পড়তেও কিন্তু আমার লেখাপড়া কিছুই হচ্ছেনা। প্রচুর আড্ডাবাজ ছিলাম, আড্ডাও দিতে মন চাইনা। মনে হয় যে কি ভুল করলাম। ফ্রেন্ডরা বুঝতে পারে যে আমি চরম ডিপ্রেশনে আছি কিন্তু ব্যাপারটা আমি শেয়ার করিনি। কারণ এর সমাধান খুঁজে পাচ্ছিনা। কোন কিছুই ভালো লাগেনা। ছেলে ভালো, ছোট থেকেই চিনি। তবুও কেন জানি বিয়ের পর কথা বলতে ভালো লাগেনা। বাকি সব ঠিক আছে। মনে হচ্ছে আমি আমার কাজিনকে ঠকাচ্ছি। ওর তো দোষ নেই। কিন্তু আমিই মেনে নিতে পারছিনা। ধন্যবাদ।

প্রিয় গ্রাহক,আপনার জীবনের কথাগুলো আমাদের সাথে শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ। কিছুডিন আগে আপনার বিয়ে হয়েছে আপনার কাজিনের সাথে পরিবারের সম্মতি তে। কিন্তু বিয়ের পর থেকে আপনার ওনাকে ভালো লাগছেনা শিক্ষাগত যোগ্যতার কারনে। আমি কিছুটা হলেও অনুভব করতে পারছি এখন আপনার মানসিক অবস্থাটা। আসলে জীবনসঙ্গী কে নিয়েই আমাদের প্রত্তেকের মনেই নানারকম স্বপ্ন থাকে, কিন্তু স্বপ্ন গুলো যখন পূরণ হয়না তখন খারাপ লাগাটাই স্বাভাবিক। আপনার ক্ষেত্রেও হয়তো প্রত্তাশার কিছু অমিল দেখা দিচ্ছে। তবে একটু ভেবে দেখুনতো বিয়ের ১দিন আগেও যে মানুষটিকে পরাশোনা কম করেছে জেনেও আপনার কোন আপত্তি ছিলো না, বিয়ের পড়ে কেনো আপনার মনে বিভিন্ন সংশয় দেখা দিয়েছে? এই পরিবর্তন টার কারন টি কি আপনি ধরতে পেরেছেন? ওনাদের আচরনের মধ্যে কোনো চেঞ্জ বা কোনো ফ্রেন্ড এর কোন কথা যাই হোক একটু খেয়াল করে বিশয়টি আমাদের জানালে আপনার বিষয়টি বোঝা ও আপনাকে সাহায্য করা আমাদের পক্ষে সহজ হবে।একটু ভেবে দেখুনতো আপনার অনেক ভালো জায়গা থেকে পাশ করা, অনেক ভালো ক্যারিয়ার এর কারো সাথে বিয়ে হলো, কিন্তু ছেলেটি আপনাকে উঠতে বসতে কথা শোনায়, মারধর করে, তার পরিবার ও আপনাকে শারীরিক ভাবে নিরজাতন করে, ঐ ছেলেটিকে আপনি তখন আর ভালোবাসতে পারবেন? আর অপরদিকে একটি ছেলে যে খুব বেশী পড়াশোনা করেনি, খুব বেশী উপার্জন ও হয়তো করেনা, কিন্তু আপনাকে খুশি করার জন্য তার উপারজনের প্রতিটি টাকা খরচ করে, আপনার সুখের জন্য নিজের অনেক কিছু উৎসর্গ করতে পারে, আপনাকে আপনার মতো করে ভালবাসতে পারে, তাকে বেশী পছন্দ করবেন? জানি একথাগুলো হয়তো আপনার ক্ষত টা মুছতে পারবে না, কিন্তু একটু চেষ্টা করে দেখতে পারেন মন্টাকে শান্ত করার। সম্ভব হলে খুব সুন্দর করে গুছিয়ে আপনার হাজবেন্ড কে উৎসাহী করতে পারেন নতুন ভাবে পড়াশোনা শুরু করানোর যদি সুজোগ থাকে। আশা করি আপনাকে কিছুটা সাহায্য করতে পেরেছি। অনেক অনেক শুভকামনা রইলো আপনার জন্য। 

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও