প্রশ্ন সমূহ
আর্টিকেল
মায়া শপ

মায়া প্রশ্নের বিস্তারিত


প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। আপনি জানতে চেয়েছেন আবেগ কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হয়. আবেগ আমাদের সহজাত অনুভূতি প্রকাশ করার মাদ্ধম। পৃথিবী ব্যাপী সকলে একই ভাবে আবেগ প্রকাশ করে. হাসি, মন খারাপ , রাগ, আশ্চর্য হওয়া এগুলোই আমাদের আবেগ। আবেগ আমাদের থাকবেই। আবেগ নিয়ন্ত্রণ বলতে আপনি কি বুঝিয়েছেন? আপনি কোন আবেগ গুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে চেয়েছেন? আমাকে জানাবেন। তাহলে আমার হেল্প করতে সুবিধা হবে.মায়া আপা. আমি একটি মেয়ের ওপর খুব আশক্তি হয়ে পরেছি আমি চাই তার থেকে দুরে থাকতে কিন্তু পারি না।কেন পারিনা আমি নিজেও জানি না।।ও আমাকে নতুন করে বাচার আসা দেখিয়ে ছে। আমি তাকে ছাড়া আমার শরির কেমন যেন করে কখন মনে হয় শরিল ঠান্ডা হয়ে যায় আবার কখন গরম।আমি তাকে ভুলে থাকার চেস্টা করছি কিন্তু তার থেকে দূরব গেলে আমি আমার চারপাশের মানুষ এর সাথে খারাপ ব্যাবহার করতে থাকি।কিন্তু আমি বঝতে পারছি তার সাথে থাকার কারণে আমার পড়ালেখা + ক্রিকেট খেলার ও বেপক ক্ষতি হছে।আমার বয়স ১৯ ওর ১৮ আর আমি মুসলিম ও হিন্দু। কিন্তু সে আমার জন্য সব ছার তে পারবে।কিন্তু আমি মনে করি পালিয়ে যাওয়া কোন সমাধান না।আপনাদের কাছে কোন ভাল সমাধান থাকলে দিবেন প্লিজ? আর আমার ত আগে নিজের পায়ে দারা তে হবে। আমার বাবার সমাজে একটা সম্মান আছে আমি চাই না আমার কারণে তা নষ্ট হওক।আমি আবার এইটাও চাই না যে আমার কারণে কোন মানুষ এর প্রান যাক। যে আমাকে তার জীবন এর চেও বেশি চায় আমাই তাকে ছাড়ি কিভাবে। আমি এখন কি করব কিছু বোঝে উঠতে পারছি না।প্লিজ আমাকে হেল্প করেন। প্রিয় গ্রাহক,আপনার মনের একান্ত কষ্টের কথাগুলো আমাকে বিশ্বাস করে বলার জন্যে ধন্যবাদ। আপনি দ্বিধায় আছেন বুঝতে পারছি। এক দিকে সামাজিক ভাবে প্রতিষ্ঠিত হতে হবে আরেক দিকে ভালোবাসার মানুষ। কি কারণে মেয়েটিকে ভুলে যেতে চাচ্ছেন বলবেন কি? আপনি যে চেষ্টা করে যাচ্ছেন তা খুবই প্রশংসনীয়। আপনি এটাও বুঝতে পারছেন যে আপনি মানুষের সাথে কখন খারাপ আচরণ করছেন? তখন কি আপনার অপরাধ বোধ হয়? আমাকে জানাবেন। আপনি যে সচেতন তও বুজতে পারছি, পালিয়ে যাওয়া আসলেই সমাধান নয় এবং আপনি আপনার বাবার সম্মান রক্ষা করতে চাচ্ছেন। ছেলে হিসেবে আপনার দায়িত্ব পালন করছেন আপনি। নিজের ক্যারিয়ার এর দিকে ফোকাস দিতে চাচ্ছেন এতো প্রতিকূলতার মধ্যেও তা খুবই প্রশংসনীয়। আপনার কি ভয় কাজ করছে রিলেসন চালিয়ে যেতে কারণ আপনার ভিন্নধর্মী? আপনার কথা থেকে বুজতে পারছি মেয়েটি আপনাকে কতটা চায়. পারিপার্শিক অবস্থা বুঝে সিদ্ধান্ত নিবেন আশা করছি।কোন প্রশ্ন থাকলে মায়া আপাকে অবসসই জানাবেন।  আমি আসলে চেস্টা করছি কিন্তু পারি না ভুলতে আসলে আমি ওকে ৬ শ্রেণি থেকে ভালবাসি ও আমার খুব ভাল বন্দু ছিল ধিরে ধিরে তা ভালবাসায় পরিণত হয় আমার এই বিষয়টা আমার মা ও জানে মা বলছে যাই করি ভেবে করতে কিন্তু আমি কি করব বুঝতে পার ছি না আমার মায়ের ওকে মেনে নিতে কোন সমস্যা নেই কিন্তু আব্বু মেনে নেনা যানি না আমি আব্বু কে খুব ভয় পাই আব্বু বিষয় টা জানে আর আমাদের ২জনের বাড়ি পাশাপাশি এলাকায়।এক দিকে ভালবাসা আর এক দিকে পরিবার? আমি কি করব কিছু বঝতে পারছি না আর ওকে বাসা থেকে ছেলে দেখা শুরু করছে ও বলছে আমাকে না পেলে বিয়ের দিন মারা যাবে। আমাকে ১ মাশের সময় দিছে আমি নাকি ওকে নিয়ে পালিয়ে যেতাম। আমি পালিয়ে গেলে আমি ওকে চালাতে পারব ঠিকি কারন আমি একজন কম্পিউটার টেক্নিশিয়ান ও।যে কোন মার্কেট এ কাজ পাব।কিন্তু আমার মা আমাকে ভালবাসে আমি এক দিন বারির বাইরে থাকলে কমে ১৫-২০ কল করবে।তার ওপরে তিনি হার্টের রোগি আবার ব্রেইন ও প্রোব্লেম হবে। আমি কি করব কিছুই বুঝতে পারছি না। please help me? প্রিয় গ্রাহক, জানানোর জন্য ধন্যবাদ। আপনি বলেছেন আপনার মা বিষয় টি জানেন তবে আপনার বাবা কে ভয় করছেন তিনি মেনে নিবেন কিনা। এক্ষেত্রে ভয় পাওয়াটা স্বাভাবিক। তবে ভয় পেয়ে পিছিয়ে থেকে কি কোনো লাভ হচ্ছে কিনা  ভেবে দেখবেন। আপনার মার্ রুটি আপনার শ্রদ্ধাবোধ অনেক বুঝতে পারছি। মার্ জন্যেই আপনি পালিয়ে যান নি. তা খুবই প্রশংসনীয়। আপনার ভালোবাসার মানুষটি কি তার পরিবারে আপনার কথা বলেছে? সেটা করা যায় কি? বা মেয়েটি এখন বিয়ে করতে চাচ্ছে না।  সেটা তার পরিবার ক বলতে পারে কি? তাহলে হয়ত পরিস্থিতি অনুকূলে আসতে পারে।কি হলো জানাবেন।মায়া আপা আপনার সাথেই আছে. আমার বাবা তার সন্মান কে আগে চিন্তা করে সে তার সম্নান এর জন্য যে কোন কিছু করতে পারে খুব ভয়ানক। আমি বাবা কে আগে একবার বলছিলাম তার পর  সে বলবে তুই কি পাগল নাকি সমাজ কি বলবেআমি তার প্রতি উত্তর এ বলি আমাদের সমাঝে অনেক গরিব লোক আছে তারা যদি এক বেলা নাখায় আপনি ত তাদের দিয়ে আসেন না আর আমরা যদি গরিব হতাম তাহলে ত সমাজ আমাদের ও দেখার সময় থাকত না।ওই দিন ওনি আমাকে থাপড় মারেন বলছে ওরে ছাড়া যে কাওকে মেনে নিবে।আর ওর পরিবারে ও আমার কথা বলতে পারছিলনা কারণ আমার ধর্ম।ওর বড় বোন আমাদের বাসায় বাড়া থাক তা আমি আর ও যেই স্কুল এ পরতাম ওনি ওই স্কুল এর শিক্ষক অনিও প্রেম করে বিয়ে করছে একজন সেলুন কে ওই সেলুন আমাদের এলাকায় চুল কাটে তাই আমাদের বাসায় ভাড়া থাকে। আমি ওর বোনকে একদিন বলছি বলার পরে ওনি রাগ করেন নি কিন্তু ওনি আমাকে ঠান্ডা মাথায় বুঝায় যে এটা কখন সম্বব না আর তুমার সামনে ভাল ভবিষ্যৎ আছে তুমি এগুলা বাদ দিয়ে পড়া লেখা কর। আমি বলছি আমি ত লেখা পড়া কর ব আমি চাই ও পড়া লেখা করক ওনি বলে ওর পরা লেখা নিয়ে তুমার ভাবতে হবে না।তুমি এখন ছুট। আমি অনেক কস্টে আমার রাগ টা নিয়ত্রন করে রাখ ছিলাম। আমি তার পর ও ওনাকে বুঝাতে লাগ্লাম ওনি এক সময় রেগে আমাকে চলে যেতে বলেন তার ১সপ্তাহ র মধ্যে ওনি আমাদের বাড়ি ছেড়ে পাশের বাসায় চলে গেলেন।আমার সব রাস্তা বন্ধ আমি এখন একজন কে বাচাতে গেলে আর একজন মরবে। আমি নিজে মরেও যদি দুজন কে বাচাতে পারতাম আমি করতাম। কিন্তু এতে দুজনেই পরে মরবে।আমার সামনে কঠিন ন দিন আমার ৯ দিন সময় আলরেডি শেষ।ওরে বাচাতে হলে পালানো ছাড়া রাস্তা নেই আমি পালিয়ে গেলে বাবা বলছে ওনি আমাদের ত মারবেন ওনি নিজেও।মরে জাবেন।

প্রিয় গ্রাহক, 

জানানোর জন্যে ধন্যবাদ। আমি বুঝতে পারছি আপনার অবস্থাটা। অনেক অসহায় এখন আপনি। বাবা-মা আপনার ভালোর জন্যেই এরকম তা করে. এটা  তাদের দায়িত্ত। এমন কেউ কি আছে যিনি আপনাকে এই ব্যাপারে হেল্প করতে পারে? কোন বন্ধু বা কাছের কেউ. আপনাকে পরামর্শ দিতে পারে বা দুই পরিবারে ব্যাপারটা নিয়ে কথা বলতে পারে? ভেবে দেখবেন। যেহেতু আপনাদের বয়স কম. এই বয়সে আবেগটা বেশি কাজ করে, তাই বাস্তব সম্মত চিতা করলেই কি ভালোনা? ভেবে দেখবেন। এই সম্পর্কের ভবিষ্যত কি হবে.

কোনো প্রশ্ন থাকলে মায়া আপাকে অবসসই জানাবেন। 



প্রশ্ন করুন আপনিও