প্রিয় গ্রাহক  আপ্নাকে ধন্যবাদ, মাসিক শুরু হবার পর ৫-৭ বছর পর্যন্ত মাসিক অনিয়মিত হতে পারে , তবে এর পর নিয়মিত হয়ে যাবার কথা। মাসিক ২৮-৩৫ দিন পর পর প্রতি মাসে হয়াটা কাংক্ষিত ।  সাধারনত পলিসিস্টিক ওভারির জন্য অনিয়মিত মাসিক হতে পারে । তাই আল্ট্রাসনোগ্রাম করিয়ে নেয়াটা খুব জরুরি । আবার থাইরয়েড হরমন কিংবা প্রল্যক্টিন হরমনের পরিমানে পরিবর্তনের জন্য ও হতে পারে মাসিক তাই এই হরমনের পরিমান জেনে নেওয়াটা ও জরুরি। অনেক সময় দেখা যায় যে এ সব কিছুর রিপোর্ট ই নরমাল কিন্তু অনিয়মিত মাসিক আছে সেক্ষেত্রে ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখাটা জরুরি । জন্মনিয়ন্ত্রন পিল খেয়ে মাসিক নিয়মিত করে নিতে পারেন ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও