প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। গ্রাহক, হস্তমৈথুন করার পরে শরীর দুর্বল লাগা, মাথা ঘোরা, হাত পা ঝিম ঝিম করা- এ সবই স্বাভাবিক। যা অন্য যে কোন কাজ করলে হয়। হস্তমৈথুন হল আপনার জননেন্দ্রিয় বা জেনিটাল (genital) কে উদ্দীপিত করা ওরগাজম এর লক্ষ্যে। হস্তমৈথুন একটি স্বাভাবিক এবং প্রচলিত প্রক্রিয়া। এর ফলে শুক্রাণু বা স্পার্ম (sperm) এর কোন ক্ষতি করে না।শুক্রানুর সংখ্যা সাময়িক ভাবে  কমে যেতে পারে ,তবে কিছুদিন হস্তমৈথুন না করলে তা আবার স্বাভাবিক হয়ে যায় ।তবুও আপনি যদি প্রায়ই হস্তমৈথুন করেন তাহলে আপনার বীর্য কিছুটা তরল দেখা যেতে পারে। যেহেতু বীর্য তৈরি হয় অন্ডকোষে, তাই বেশি হস্তমৈথুনের ফলে, অণ্ডকোষে বীর্যরস তৈরিতে ব্যাঘাত ঘটতে পারে। বাড়তি বীর্য তৈরির চাপ সামলাতে হিমশিম খেতে পারে অণ্ডেকোষ। ফলে অণ্ডথলিতে ব্যাথা হওয়া অস্বাভাবিক নয়।-অতিরিক্ত হস্তমৈথুনে মস্তিষ্কে বীর্য তৈরির হরমোনের ঘাটতিও দেখা দিতে পারে। অতিরিক্ত হস্তমৈথুনের ফলে যৌনাঙ্গে ব্যাথা ও প্রসাবে জালাপোড়া বেড়ে যায়। হস্তমৈথুন তখনই সমস্যা হয়ে দাঁড়ায় যদি এটা আপনার স্বাভাবিক জীবন -যাত্রা যেমন স্কুলে যাওয়া, কাজে যাওয়া বা মানুষের সাথে মেলামেশায় বাধা সৃষ্টি করে। যদি আপনার জীবনে এরকম ঘটে তখন আপনি নীচে উল্লেখিত বিষয়গুলো চেষ্টা করতে পারেন— *হস্তমৈথুন কমিয়ে ফেলা বা বন্ধ করা * নিয়মিত  ব্যায়াম করা * পর্নগ্রাফী এড়িয়ে চলা *নতুন কোন শখের দিকে আগ্রহী হওয়া * বন্ধুত্ব পূর্ণ সুস্থ সুন্দর সম্পর্ক সৃষ্টি করা *আপনার smoking বা alcohol এর অভ্যাস থাকলে তা পরিহার করুন *আপনি relaxation technique চেষ্টা করে দেখতে পারেন। গ্রাহক, আপনার ওজন এবং উচ্চতা কত ? আমাদের শরীরের লম্বার সঙ্গে ওজনের একটা অনুপাত থাকে,এই অনুপাতকে বডি মাস ইনডেক্স বলে BMI।যেমন ধরুন আপনার উচ্চতা আর আপনার ওজনে যদি আপনার BMI 18-24.9 হয় তালে এটা নরমাল। 18 এর কম হলে, আপনাকে ওজন বাড়াতে হবে। ওজন বাড়ানোর জন্য আপনি কতগুলো জিনিস করতে পারেন I ১. যেমন,আপনি একবারে বেশি না খেয়ে অল্প পরিমানে বারে বারে খেতে পারেন I ২. ভাত, আলু এবং রুটি বেশি খেতে পারেন I ৩. প্রতিদিন ডিম এবং দুধ খেতে হবে I ৪. প্রচুর পরিমানে পানি খেতে হবে I ৫. Protein জাতীয় খাবার শাকসব্জি, ফল-মূল ,মুরগি এবং মাছ,মাংস খেতে হবে I ৬. সুস্থ থাকার জন্য প্রতিদিন নিয়মিত exercise করতে হবে I ৭. রাতে ৮ থেকে ৯ ঘন্টা ঘুমানো উচিত I ওজন বাড়ানোর জন্য খাওয়া দাওয়ার বিশেষজ্ঞর পরামর্শ নিতে পারেন এবং তার কাছ থেকে আপনি খাদ্য তালিকা নিতে পারেন I ওজন ধীরে ধীরে বাড়ানো উচিত. এরপরও যদি ওজন না বাড়ে অথবা ওজন কমে যায় তাহলে ডাক্তার দেখানো উচিত I আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও