প্রশ্ন সমূহ
আর্টিকেল
মায়া ফার্মেসী

পুর্বে আপনার গরুর দুধ সেবনে কোন সমস্যা হয়েছে কি?জানাবেন। হা আপনি ডেইলি গরুর দুধ সেবন করতে পারেন কোন সমস্যা নেই।মাইগ্রেন একধরণের মাথাব্যথা। মাথার একদিকে হয় বলে বিখ্যাত হলেও দুদিকেও হতে দেখা গেছে। যাদের মাইগ্রেন হবার প্রবণতা আছে, তাদের শব্দ, আলো, গন্ধ, বাতাসের চাপের তারতম্য ও কিছু খাবার যেমন চকলেট, আঙুরর রস, পনির ইত্যদির প্রভাবে পুনরায় নতুন করে ভয়ঙ্কর মাথাব্যাথা শুরু হতে পারে। তবে মাইগ্রেনে শুধু মাথাব্যাথাই হয়না, তার সঙ্গে আরো কয়েকটি স্নায়বিক উপসর্গ হয়ে থাকে (যেমন কিছু আলো বা শব্দের অনুভুতি)। উপসর্গ অনুযায়ী মাইগ্রেনের মধ্যেও অনেক রকম ফের আছে। কারো কারো মতে সেরকম কয়েকটি মাইগ্রেনের উপসর্গ থাকলে মাথা ব্যাথা না থাকলেও মাইগ্রেন হয়েছে বলা যেতে পারে। মেয়েদের মাঝে এ রোগ বেশী দেখা যায়। মাথার ভেতরের রক্তচলাচলের তারতম্যের কারণে এই রোগ হয়। রক্ত চলাচল কমে গেলে হঠাত্ করে চোখে সব অন্ধকার দেখা যায়, এবং পরবর্তীতে রক্ত চলাচল হঠাত্ বেড়ে গিয়ে প্রচন্ড মাথা ব্যথার অনুভূতি তৈরী হয়। এই সমস্যা মস্তিষ্কে সৃষ্টি হয় এবং তারপর ধীর ধীরে রক্তশিরায় ছড়িয়ে যায় এবং ব্যথা তীব্রতর হয়ে থাকে l মাইগ্রেনের ভয়াবহ মাথা ব্যথার সাথে যারা পরিচিত তারাই জানেন, এটি কতটা যন্ত্রণাদায়ক। মাইগ্রেনের মাথাব্যথা একবার শুরু হলে যেতেই চায় না। যন্ত্রণার তীব্রতা অনুযায়ী এর স্থায়িত্ব ২/৩ দিন পর্যন্ত হতে পারে। সাধারণ পেইনকিলারে এই মাইগ্রেনের মাথা ব্যথা দূর করা সম্ভব হয়ে ওঠে না। একবার মাইগ্রেন হলে এই রোগের রেশ জীবনভর বয়ে নিয়ে যেতে হয় l তবে সুস্থ্য জীবন যাপনের মাধ্যমে এই রোগকে কিছুটা হলেও নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব l করণীয় : - যাদের এ রোগ আছে, তাদের অন্তত: দৈনিক ৮ ঘন্টা ঘুম আবশ্যক। - অতিরিক্ত বা কম আলোতে কাজ না করা । - কড়া রোদ বা তীব্র ঠাণ্ডা পরিহার করতে হবে । - উচ্চশব্দ ও কোলাহলপূর্ণ পরিবেশে বেশিক্ষণ না থাকা। - বেশি সময় ধরে কম্পিউটারের মনিটর ও টিভির সামনে না থাকা। - সে সব খাবার খেলে মাইগ্রেন শুরু হতে পারে সে সব খাবার যেমন কফি, চকলেট, পনির, আইসক্রীম, মদ ইত্যাদি বর্জন করা উচিত। - অধিক সময় উপবাস থাকা যাবে না। - জন্মবিরতীকরন পিল সেবন না করা শ্রেয়। প্রয়োজনে অন্য পদ্ধতি বেছে নেয়া ভাল। - পরিশ্রম, মানষিক চাপ এবং দীর্ঘ ভ্রমণ বর্জনের মাধ্যমে মাইগ্রেনের আক্রমণ অনেকাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব।

সমস্যা নিয়ে বসে থাকবেন না !

পরিচয় গোপন রেখে ফ্রি বিশেষজ্ঞ পরামর্শ পেতে

প্রশ্ন করুন এখনই

মায়া অ্যাপে পড়ুন